বেশিদূর যেতে হবে না  কলকাতার কাছের এই সুমদ্র সৈকত গুলিই অত্যন্ত মনোরম 

বেশিদূর যেতে হবে না  কলকাতার কাছের এই সুমদ্র সৈকত গুলিই অত্যন্ত মনোরম 

করোনা আতঙ্ক গ্রাস করেছে মানুষকে।করোনা আতঙ্কে দীর্ঘদিন গৃহবন্দি  মানুষ।যদিও এখন করোনা সংক্রমন একটু কমেছে,চলছে টিকাকরন। বাইরে ঘুরতে যেতে সাহস পাচ্ছেন না অনেকেই, কিন্তু মন তো চাইছে একটু ঘুরে আসতে , দূরে কোথাও ঘুরতে যেতে যদি সাহস না পান তাহলে ঘুরে আসুন কলকাতার কাছের এই সুমদ্র সৈকত গুলি থেকে।   

হেনরি আইল্যান্ড : কলকাতা থেকে হেনরি আইল্যান্ড ১২৬ কিমি দূরে অবস্থিত। উনিশ শতকে ব্রিটিশদের কাছে খুবই জনপ্রিয় ছিল এই আইল্যান্ড। দ্বীপটি বকখালির নিকটে বঙ্গপসাগরের উপকূলে ও সুন্দরবন জাতীয় উদ্যানের দক্ষিণে অবস্থিত। বঙ্গোপসাগর উপকূলবর্তী হেনরি আইল্যান্ডে নিরিবিলি, শান্ত এবং একাকী সমুদ্র সৈকত পর্যটকদের টানে। ভোরে সেখান থেকে সূর্যোদয় দেখার অভিজ্ঞতাও মনোরম। সঙ্গী হয় লাল কাঁকড়ার পাল, শামুক, ঝিনুক।

ইঁটের রাস্তা কিছুটা এগিয়ে একটি অস্থায়ী, ভঙ্গুর বাঁশের সেতুতে গিয়ে মেশে। ঠিক সেখান থেকেই শুরু হয় ম্যানগ্রোভের বন। কাদায় মাখামাখি শ্বাসমূল, সুন্দরী, গেঁও, গরানের গন্ধ ও শীতল হাওয়ায় রোমাঞ্চিত হয় মন।  হেনরি আইল্যান্ড জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মাছ চাষের ভেড়ি । হেনরি আইল্যান্ডের ম্যানগ্রোভ বনে শীতকালে পরিযায়ী পাখিরা গিয়ে ভিড় করে। 

মন্দারমনি : কলকাতা থেকে মাত্র ১১৭ কিমি দূরে অবস্থিত মন্দারমনি। সারা সপ্তাহের ক্লান্তি দূর করতে যেতে পারেন  মন্দারমনি। সমদ্র, ডাবের জল, নিরিবিলিতে বসে মাছভাজা খাওয়ার জন্য উপযুক্ত হল মন্দারমনি। এছাড়াও সমুদ্র তটে ঘুরে বেড়াতে দেখবেন অজস্র লাল কাঁকড়ার দলকে।মন্দারমণি ছুটি কাটানোর আদর্শ জায়গা। এখানকার সূর্যোদয় ও সূর্যাস্ত দু'টিই দেখার মতো। এখানকার শান্তিপূর্ণ পরিবেশ খুবই আরামদায়ক।

বকখালি : কলকাতা থেকে মাত্র ১২৫ কিমি দূরে  দক্ষিণ চব্বিশ পরগণা জেলায় অবস্থিত বকখালি। কাছেপিঠে ঘোরার জন্য আদর্শ জায়গা বকখালি। বঙ্গোপসাগরের তীরবর্তী এখানকার সমুদ্র সৈকত লালকাঁকড়ার জন্যে বিখ্যাত, নির্জনতাপ্রিয় ভ্রমণ পিপাসুরা বকখালি পছন্দ করেন। এখানে আছে ম্যানগ্রোভ বন এবং উন্মুক্ত চিড়িয়াখানা।এখানে সুমুদ্রের গভীরতা খুব বেশি নয়,  ভাটার সময় পিছিয়ে যায় অনেকটা দূর।বকখালি গেলে সেখান থেকে ঘুরে আসতে পারেন জম্বুদ্বীপ, হেনরি আইল্যান্ড, ফ্রেজারগঞ্জ। 

তাজপুর : কলকাতা থেকে ১৩৬ কিমি দূরে অবস্থিত তাজপুর। তাজপুর মন্দারমণি ও শঙ্করপুর-এর মাঝে বঙ্গোপসাগর-এর তীরবর্তী একটি জায়গা।ছুটি কাটানোর এক জনপ্রিয় জায়গা হল তাজপুর। কেয়াফুলের নির্যাস আর জল-জঙ্গল আরও সুন্দর করে তুলেছে তাজপুরকে। তাজপুরের একটি ভালো ব্যাপার হল গাড়ি নিয়ে ঘোরা যায় বিচেও। এছাড়াও চুটিয়ে ফুটবল, ক্রিকেটও খেলা যায় এই বিচে । এই সৈকতেও দেখা মেলে লাল কাঁকড়ারতাজপুর দীঘার নিকটবর্তী।