জীবনে অন্ধকার থেকে আলো আনতে মা কালীর আরাধনার কয়েকটি সঠিক মন্ত্র !!

জীবনে অন্ধকার থেকে আলো আনতে মা কালীর আরাধনার কয়েকটি সঠিক মন্ত্র !!

আজ বাংলা : আমরা সকলেই জানি মা কালী আমাদের সময় কালকের অন্ধকার থেকে আলোতে নিয়ে আসে। মা কালীর আরাধনা করতে প্রয়োজন হয় চরম মনোযোগ। উপবাস করে মা কালীর আরাধনা নাকি ফলদায়ক । মা কালী এর আরাধনা করতে কোন নির্দিষ্ট নিয়ম নেই মন থেকে ভক্তি থাকলে মা তার ডাকে সাড়া দেয় । কিন্তু বেদ অনুসারে পূজার্চনার কিছু মন্ত্র থাকে যা মা কালী পুজো করার সময় পাঠ করা অবশ্যই দরকার । বেদ মন্ত্র গুলো আসুন জানা যাক ।ধরুন আপনার বাড়িতে আপনি কোন মা কালীর মূর্তি বা ছবি পুজো করছেন তখন পুজো করার সময় যে দ্রব্য প্রদান করবেন সেগুলো সমস্ত আলাদা আলাদা মন্ত্র রয়েছে যেমন __

আচমন -

ওঁ বিষ্ণু ওঁ বিষ্ণু ওঁ বিষ্ণু ওঁ তদবিষ্ণুঃ পরমং পদং পশ্যন্তি সুরয়ঃ । দিবীব চক্ষুরাততম ।। ওঁ বিষ্ণু ওঁ বিষ্ণু ওঁ বিষ্ণু ।।

পুস্প শুদ্ধি-

ওঁ পুস্পে পুস্পে মহাপুস্পে সুপুস্পে পুস্পে পুস্পসম্ভবে । পুস্পেচয়াবকীরনে ওঁ হুং ফট স্বাহা ।

প্রদীপ বা মোমবাতি প্রদানের মন্ত্র

‘এষ দীপ ওম ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ।’

ধূপকাঠি প্রদানের মন্ত্র-

‘এষ ধুপঃ ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ।’

কর্পূর প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ আরাত্রিকম্ সমর্পয়ামি।’

দুধ-স্নানাদি প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ পয়স্নানাম্ সমর্পয়ামি।’

দই-স্নানাদি প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃদধিস্নানাম্ সমর্পয়ামি।’

পঞ্চামৃত-সহ স্নানের দ্রব্যাদি প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ পঞ্চামমৃত স্নানম্ সমর্পয়ামি।’

গঙ্গাজল স্নানের প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ গঙ্গাস্নানম্ সমর্পয়ামি।’

পঞ্চফল প্রদানের মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ পঞ্চফলম্ সমর্পয়ামি।’

পুষ্প প্রদানের মন্ত্র

‘এষ গন্ধপুস্পে ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ।’

প্রণাম মন্ত্র

‘ওঁ ক্রীং ক্রীং হৃং হৃং হিং হিং দক্ষিণে কালীকে ক্রীং ক্রীং ক্রীং হৃং হৃং হ্রীং হ্রীং হ্রীং স্বহা।

ওঁ কালী কালী মহাকালী কালীকে পাপহারিণী

ধর্মার্থমোক্ষদে দেবী নারায়ণী নমোস্তুতে।’

এরপর জপ একশো আটবার করা যায় এই মন্ত্রে-

‘ওঁ ক্রীং কাল্ল্যৈ নমঃ।’

কালীকবচম্

ভৈরব উবাচ কালিকা যা মহাবিদ্যা কথিতা ভুবি দুর্ল্লভা।

তথাপি হৃদয়ে শল্যমস্তি দেবি কৃপাং কুরু।।

কবচন্ত মহাদেবী কথয়সানুকম্পা।

যদি নো কথ্যতে মাতব্বিমুঞ্চামি তদা তনুম।।

দেব্যুবাচ: শংকাপি জায়তে বৎস তব স্নেহাৎ প্রকাশিতম।

ন বক্তব্যং ন দ্রষ্টব্যমতি গুহ্যতমং মহৎ।।

কালিকা জগতাং মাতা শোকদুঃখাদি বিনাশিনী।

বিশেষত কলি যুগে, মহাপাতকহারিণী।।

কালী মে পুরুত: পাঠু পৃষ্ঠতশ্চ কপালিনী।

কুল্বা মে দক্ষিনে পাতু করণৌ চগ্রোপ্রভামতা।।

বদনং পাতু মে দীপ্তা নীলা চ চিবুকং সদা।

ঘনা গ্রীবাং সদা পাতু বলাকা বাহুযুগ্মকম।।

মাত্রা পাতু করদ্বন্দং বক্ষো মুদ্রা সদাবতু।

মিতা পাতু স্তনদ্বন্দং যোনিং মন্ডল দেবতা।

ব্রাম্মী মে জঠরং পাতু, নাভিং নারায়ণীং তথা।

ঊরু মাহেশ্মরী নিত্যং চামুন্ডা পাতু লিঙ্গকম।

কৌমারী চ কটিং পাতু তথৈব জানুযুগ্মকম।

অপরাজিতা পাদৌ মে বারাহী পাতু চাঙ্গুলীঃ।

সন্ধিস্থানং নারসিংহী পত্রস্থা দেবতাবতু ।।

রক্ষাহীনঞ্চ যৎ স্থানং বর্জ্জিতং কবচেন তু।

তৎ সর্ব্বং রক্ষ মে দেবী কালিকে ঘোর দক্ষিণে।।

ঊর্দ্ধং-মধ্যস্তথা দিক্ষু পাতু দেবী স্বয়ং বপুঃ।।

হিংস্রেভ্যঃ সর্ব্বদা পাতু সাধকঞ্চ জলাধিকাৎ।

দক্ষিণা কালিকে দেবী ব্যাপকত্তে সদাবতু।

ইদং কবচমজ্ঞাতা যো জপেদ্দেবদক্ষিনাম

ন পুজাফলমাপ্নোতি বিঘ্নস্তস্য পদে পদে।

কবচেনাবৃতো নিত্যং যত্র তত্রৈব গচ্ছতি

তত্র তত্রভয়ং তস্য ন ক্ষোভং বিদ্যতে ক্কচিৎ।