বিয়ের পাঁচ মাসের মধ্যে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ।

গৃহবধূ
গৃহবধূ

শান্তনু পুরকাইত, আজবাংলা দক্ষিন ২৪ পরগনা, বিয়ের পাঁচ মাসের মধ্যে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করল অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ।ঘটনাটি ঘটেছে পাথরপ্রতিমা ব্লকের গোবর্ধনপুর কোস্টাল থানার g-plot গ্রাম পঞ্চায়েতের সত্য দাসপুর এলাকায়।স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গত ৫ মাস আগে মৃতা কবিতা ভক্তার(১৭) সঙ্গে স্থানীয় যুবক স্বপন মল্লিক এর সঙ্গে বিয়ে হয়। দুজনের মধ্যে সম্পর্ক ছিল মধুর। কেউ কাউকে ছেড়ে ও কোথাও যেত না। সাঁওতাল সম্প্রদায়ের মানুষ হওয়ায় মাছ কাঁকড়া ধরে জীবিকা নির্বাহ করত। গতকাল একইসঙ্গে বাড়িতে তাস খেলতে বসে মেয়ে জামাই, শশুর শাশুড়ি। খেলা শেষ হলে শ্বশুর-শাশুড়ি ঘুমাতে চলে যায়। শশুর শাশুড়ি জামাই মেয়ে সবাই একই বাড়িতে থাকে। মেয়ে-জামাইয়ের যথারীতি বাড়িতে ঘুমিয়ে পড়ে কিছুটা দূরে মৃতার বোন শুয়ে থাকে। আজ মৃতার বর প্রাতঃক্রিয়া করতে বাইরের দিকে যায়। বাড়িতে চিৎকার-চেচামেচি শুনে দৌড়ে এলাকার মানুষজন দেখতে পায় বাড়ির মধ্যে গলায় কাপড় দিয়ে ঝুলছে। তড়িঘড়ি নামালেও ততক্ষণে মারা গেছে কবিতা। এই বিষয়ে মৃতার বাবা-মা বলেন জামাই এবং মেয়ের মধ্যে কোনরূপ কোন ঝগড়া হয়নি দুজনার মধ্যে খুবই মিল ছিল কিন্তু কেন গলায় দড়ি দিল তা বুঝতে পারছে না তারা। এমনকি কখন গলায় দড়ি দিয়েছে সেটাও তারা জানতে পারেনি। এলাকাবাসী প্রশ্ন একই বাড়িতে কিছুটা দূরে সবাই যখন ঘুমাচ্ছে গলায় দড়ি দিল কেউ কিছু বুঝে উঠতে পারল না কেন। গোবর্ধনপুর থানার পুলিশ খবর পেয়ে মৃতদেহ ইন্দ্রপুর প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যায় সেখানে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করলে আজ তাক কাকদ্বীপ ময়নাতদন্তে পাঠানো হচ্ছে ময়নাতদন্ত রিপোর্টের পর আসল তথ্য জানা যাবে বলে মন্তব্য করেন এলাকার মানুষ তবে জামাই এর প্রতিকার কোন অভিযোগ নেই।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!