বাংলার ছেলের করা শৌচালয়ের নকশা গেল নাসায়

বাংলার ছেলের করা শৌচালয়ের নকশা গেল নাসায়

আজবাংলা  সম্প্রতি মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা ঘোষণা করেছে ‘লুনার লু চ্যালেঞ্জ’। এই চ্যালেঞ্জ এ যদি আপনি জয়লাভ করতে পারেন, তাহলে নাসার ওয়েবসাইটে আপনার নাম উঠবে এরই সঙ্গে মিলবে ভারতীয় মুদ্রায় নগদ ২৮ লক্ষ টাকা। নাসার এই অভিনব চ্যালেঞ্জটির অর্থ হল, এক চন্দ্রযান পাঠানো হবে চাঁদে। সেই চন্দ্রযানের মধ্যে শৌচালয়টি দেখতে কেমন হতে পারে, ও সেটির মধ্যে কি কি সুবিধা থাকতে পারে, সেইসব যাবতীয় বিষয় নিয়ে গঠন করা হয়েছে এক বিশ্বজোড়া প্রতিযোগিতা।

২০২৪ সালে চন্দ্রযানে আবার চাঁদে মানুষ পাঠানোই নাসার লক্ষ্য হতে চলেছে। এর পরের ধাপেই হবে মঙ্গল। বিজ্ঞানী-গবেষকদের পাশাপাশি, সারা বিশ্বের সব মানুষদের আহবান জানিয়েছে নাসা। নাসা তাঁদের কাছ থেকেও শৌচালয়ের নকশা চেয়ে পাঠিয়েছে। কয়েক কোটি মানুষ অবিরাম পরিশ্রম করে চন্দ্রযানের শৌচালয়ের নকশা বানিয়ে চলেছেন। এই কিছুদিন আগেই মঙ্গলের অভিমুখে রওনা দিয়েছে এক বাঙ্গালী যুবক শৌনক দাসের নাম। এবার এই শৌনকই তার করা সম্ভাব্য নকশা পাঠিয়েছেন নাসায়। এই প্রসঙ্গে তার বক্তব্য, তিনি নিজে যেতে না পারুন চাঁদে, কিন্তু তাঁর তৈরি নকশা অনুযায়ী শৌচালয় হোক চন্দ্রযানে।

তবে এই বিষয়ে বেশ কয়েকটি শর্ত দিয়েছে নাসা। জানানো হয়েছে, এই শৌচালয়ের নকশা তৈরির সময় কয়েকটি বিষয় মনে রাখতে হবে, যথা-  ১} এই ধরনের অভিযানে বায়ুর যে ধরনের চাপ থাকে, তাতে নিম্নচাপের আধিক্য দেখা যায়। সেই কারনে ঘনঘন শৌচালয়ে যেতে অসুবিধা যেন না হয়। ২} এই অভিযানের মধ্যে থাকবেন মহিলা চন্দ্রাভিযাত্রীরা। তাঁদের ঋতুকালের বিষয়টি মাথায় রেখেই শৌচালয়ের নকশা বানাতে হবে। ৩} শৌচালয়ের বর্জ্য কী ভাবে ব্যবহার করা হবে, সেইটি বড় সমস্যা। সেটিকে কোথায় কিভাবে রাখা হবে সেইটা মাথায় রাখতে হবে।