জ্যোতিষশাস্ত্র মতে জেনে নিন আপনার নামের প্রথম অক্ষর অনুযায়ী শুভ রং ও প্রতিকার

জ্যোতিষশাস্ত্র
জ্যোতিষশাস্ত্র

আজবাংলা জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, নামের প্রথম অক্ষর দিয়েই সেই ব্যক্তি সম্পর্কে অনেক কিছু জানতে পারবেন অপনি। নামের প্রথম অক্ষর কিছু না কিছু অর্থ বহন করে। এই একটা অক্ষর দেখে যে কোনও মানুষের সম্পর্কেই অনেক আজানা কথা বুঝে যাওয়া সম্ভব। চরিত্র মানুষের এক অমূল্য সম্পদ। যিনি চরিত্রবান তিনি সমাজে যে কোনও বিরাট সম্পদশালীর চেয়ে বেশি সম্মান পেয়ে থাকেন। চরিত্র মানুষকে দান করে স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য। এই বৈশিষ্ট্যগুলি অঙ্কের মতো একটি ছকের মাধ্যমে কষে নির্ণয় করেন জ্যোতিষ গবেষকরা। তাই সব ক্ষেত্রেই যে নির্ভুল ভাবে তার মিল হবে এমনটা নয়। তবে অবশ্যই সংক্ষেপে চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য সম্বন্ধে ধারনা করে নেওয়া যায়।

১।   ‘এ’ অক্ষর দিয়ে যাদের নাম শুরু তাদের জীবনে হলুদ রঙের প্রভাব সবচেয়ে বেশি।
২।  এদের মধ্যে দেবগুরু বৃহস্পতির প্রভাব বেশি দেখা যায়। যার ফলে এরা অল্পেতে তুষ্ট থাকতে চায় না। যা কিছু পায় তার চেয়ে আরও বেশি পাওয়ার অদম্য লালসা থাকে।
৩।  এরা যদিও মান সন্মান সম্ভ্রম নষ্ট করে কিছু করতে রাজি নয়।
৪।  এরা জগতের বুকে নিজের সব রকম কালিমার দাগ মুছে ফেলে মাথা উঁচু করে সগর্বে দাঁড়াতে চায়। যতই প্রতিকূলতা আসুক না কেন কখনই পিছপা হয় না। 
৫।   এরা কথার জালে আটকে দিয়ে অন্যকে বশীভূত করে ফেলে। যার জন্য এক শ্রেণীর মানুষ এদের নেতা হিসাবে মেনে নেয়। যাকে পুঁজি করে জীবনের চাওয়া পাওয়ার অনেকখানি পূরণ করা সম্ভব হয়।
৬।   এদের অনুগত লোকেরাই তার হয়ে প্রচার করে তাকে জনসমক্ষে তুলে ধরার প্রাণান্তকর চেষ্টা করে। এদের আদর্শ সব সময় অনুপ্রানিত করে। 
৭।  এরা চিকিৎসক, আইনজীবী, জ্যোতিষী, রাজনীতিবিদ সহ যে সব কাজে সাধারণ মানুষের সরাসরি যোগ রয়েছে সেই সব কাজে জয়ী হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।
৮।  কখনও কখনও একই ব্যক্তি হয়ে ওঠে সন্দেহপ্রবণ, কুটিল, স্বার্থপর। লড়াই করেও নিজের লক্ষ্যে পৌছানোর মানসিকতা থাকে।
প্রতিকারঃ- শুভ রং হিসাবে হলুদ রঙের প্রভাব থাকবে। জীবনের কোনও রকম অশুভ প্রভাব দূর করার জন্য গাঢ় কমলা, সোনালি, কাঠের রং ব্যবহার করা যেতে পারে।