জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী জীবনে দারিদ্রতার যোগ কেন আসে দেখে নিন

আজবাংলা জ্যোতিষশাস্ত্র অনুযায়ী, জন্ম ছকে রবি ও শুক্র কাছাকাছি বা একই নক্ষত্রে অবস্থান করলে দারিদ্র‍্য যোগ তৈরি হয়। এ ছাড়া লগ্নের দশমে, রবির একাদশে এবং চন্দ্রের অষ্টমে কোনও গ্রহ না থাকলেও জাতক জাতিকাকে প্রায় সারাজীবন দারিদ্র‍্য যন্ত্রণায় ভুগতে হয়। এছাড়া যদি মঙ্গল, বুধ, বৃহস্পতি, শুক্র, শনি এই গ্রহগুলি পঞ্চম, ষষ্ঠ, অষ্টম ও দশমস্থানে অবস্থান করলে এই যোগ দেখা যায়। একইসঙ্গে দ্বাদশপতি নীচস্থ ও রবি দগ্ধ অস্তমিত হলে জাতক ও জাতিকাকে ভিক্ষাবৃত্তি অবলম্বন করে জীবনযাপন করতে হবে।আবার কখনও বৃহস্পতি লগ্নপতি বা অষ্টমপতি হয়ে ভাগ্যপতি অপেক্ষা, বেশি বলবান হলে এবং শুক্র ও রাহু, শুক্র ও রবি নীচস্থ হয়ে বা একসঙ্গে অবস্থান করলে অভাব দেখা দেয়। আর এই অভাবের কারন থেকেই জাতক জাতিকার স্বভাব নষ্ট হয়ে যায়। আবার যদি শনির অবস্থান পাপদৃষ্ট হয় এবং রবি বুধ লগ্নে থাকে তাহলে  জাতক সারাজীবন দারিদ্রতা থাকবে।আপনার হাতে যদি ভাগ্য রেখা এবং রবি রেখা যদি ভগ্ন অবস্থায় থাকে, তাহলে দারিদ্র যোগ দেখা দেয়। অষ্টমপতি, ভাগ্যপতি অপেক্ষা বেশি শক্তিশালী হয় এবং আয়পতি কেন্দ্রগত হয়ে রবি দ্বারা আবদ্ধ হয় তাহলে জাতক বা জাতিকার দারিদ্রতার সীমা থাকে না।জাতক বা জাতিকার রাত্রিতে জন্ম হলে, লগ্ন যদি চর রাশিতে থাকে এবং শুভ গ্রহ দুর্বল হয়ে কেন্দ্র ও ত্রিকোণগত হয়, পাপ গ্রহগণ কেন্দ্র ভিন্ন অন্যস্থানে থাকে,তাহলে ভিক্ষুক যোগ হয়।

১। বুধের ক্ষেত্র অপ্রশস্ত, কাটাকাটিযুক্ত, তিলযুক্ত হলে অন্যায়ের পথে সাময়িক উন্নতি হলেও শেষ পর্যন্ত তাকে দারিদ্রতার মুখে পড়তে হয়। 
২। রবির ক্ষেত্রে হাত যদি সুডৌল বা উন্নত হয়, রবিরেখা স্পষ্ট ও গভীর হয় তবে তা খুব অশুভ ফল দেয়।(কিরোর মতে যার হাতে রবিরেখা নেই তার জীবন অন্ধকারময়)। অর্থাৎ দারিদ্র যোগ থাকবেই। 
৩। রবির শিখাস্থানে রেখাপুঞ্জ অখণ্ড ও ছিন্নভিন্ন, বহুধা বিস্তীর্ণ  ও কুব্জাকার বিশিষ্ট হয় এবং রেখা যদি অনামিকার সন্ধিস্থান থেকে উৎপন্ন হয়ে আয়ুরেখা অবধি সঞ্চারিত হয়, তাহলে জাতক বা জাতিকাকে অতি দরিদ্র, সম্বলশূন্য, পথের ভিখারি হতে হয়।  
৪। শনির শিখাস্থানে যদি মধ্যমাঙ্গুলীর মুল থেকে কোনও রেখা এসে শনির শিখাকে দ্বিগুন করে, তবে সেই ব্যক্তি অতি সযত্নে থেকেও দরিদ্রতাকে বিয়োজন করতে পারবে না। 
৫। স্ত্রী জাতির মধ্যমাঙ্গুলীর প্রথম সন্ধিস্থান থেকে যদি ৫, ৬, ৭, ৮টি রেখা নির্গত হয়ে দ্বিতীয় সন্ধিস্থান অবধি উত্থিত থাকে, তবে তারা দরিদ্র ও দুর্ভাগ্য যুক্ত হবে। 
৬। মঙ্গল অশুভ কাটাকাটি হলে বা তিল থাকলে কর্মে অসাফল্য, ব্যবসায় ক্ষতি, জমিজমা ও গৃহ প্রভৃতি না থাকতে পারে। জীবনে পদে পদে অশান্তি লেগে থাকে।
৭। লক্ষ্য করার বিষয় হল দারিদ্রযোগ কেবল মাত্র অর্থনৈতিক দারিদ্রতা নয়। দারিদ্রতাযোগ এমন একটি যোগ যা বিদ্যাকে নষ্ট করে, প্রেম ভালবাসা নষ্ট করে, সংসারে অশান্তি, মানসিক আঘাত, এমনকী সন্তানদের ওপরেও তার প্রভাব দেখা যায়।