দুর্ব্যবহারের অভিযোগ সরিয়ে দেওয়া হল নদিয়ার জেলাশাসক পবন কাদিয়ানকে।

মলয় দে আজবাংলা কৃষ্ণনগর মাস দুয়েক আগে সুমিত গুপ্তের জায়গায় নদিয়ার জেলাশাসক হয়ে আসেন পবন কাদিয়ান। প্রথম থেকেই ছুটিছাটা, অসুস্থতা বা আরও নানা বিষয়ে ডব্লিউবিসিএস অফিসারদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ উঠছিল তাঁর বিরুদ্ধে। অনেকেই ভিতরে- ভিতরে ফুঁসছিলেন। গত সপ্তাহে ডানকুনি পুরসভার এগজ়িকিউটিভ অফিসার রিজওান ওয়াহাবকে ফোনে তাঁর কুরুচিকর কথা বলার অভিযোগ সামনে আসার পরে ক্ষোভ উস্কে ওঠে। শেষ পর্যন্ত সমস্ত জল্পনার অবসান ঘটিয়ে সরিয়ে দেওয়া হল নদিয়ার জেলাশাসক পবন কাদিয়ানকে। তার জায়গায় নতুন জেলাশাসক হলেন বিভু গোয়েল। প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পবন কাদিয়ানকে অর্থ দপ্তরের যুগ্ম সচিব পদে বদলি করা হয়েছে । নদিয়ার নব নিযুক্ত জেলাশাসক বিভু গোয়েল আগে হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের সিইও পদে ছিলেন। পবন কাদিয়ানের বদলি প্রসঙ্গে যে কারনটি জানা যাচ্ছে অধস্তন কর্মচারীর সাথে দুর্ব্যবহার ও ফোনে হুমকি। কিছুদিন আগে একটি অডিও রেকর্ড প্রকাশ্যে আসে, যেখানে নদিয়ার জেলাশাসক পরিচয় দিয়ে ডানকুনি পৌরসভার একজন এক্সিকিউটিভ অফিসারকে ফোন করে, নগ্ন করে পেটানোর হুমকি দেওয়া হচ্ছে। অডিওটি প্রকাশ্যে আসতেই চাঞ্চল্য ছড়ায় প্রশাসনিক মহলে। সংঘাত শুরু হয় আই.এ.এস বনাম ডব্লিউ.বি.সি.এস মহলে।নদিয়ার জেলাশাসক হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই নদিয়ার সাংবাদিক মহলেও ঐ অফিসারের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ জমা হয়েছিল। বেশ কয়েক মাস নদিয়ার দায়িত্বে থাকা সত্বেও তিনি জেলার প্রায় কোনো সাংবাদিকদের চিনতেন না বললেই চলে। জেলার সাংবাদিকদের সঙ্গে তিনি দেখাও করতে চাইতেন না। সাংবাদিক দের থেকে সব সময় দূরত্ব রেখে চলতেন তিনি।ফলে মনে করা হচ্ছে উল্লিখিত কারন গুলোর জন্য এই রদ বদল। যদিও এই রদবদলের ফলে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছে ডব্লিউ.বি.সি.এস মহল।