কলকাতার হাওয়াতে ক্রমশ বাড়ছে বায়ু দূষণের মাত্রা,হেল দোল নেই প্রশাসনের

air pollution in kolkata
air pollution in kolkata

আজবাংলা ইতিমধ্যেই দিল্লির দূষণ মাত্রা ছাড়িয়েছে। কলকাতার হাওয়াতেও দূষণের মাত্রা ক্রমশ বাড়ছে বলে দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদ সূত্রের দাবি। পরিবেশবিদদের একাংশের বক্তব্য, এই দূষণের পিছনে গাড়ি, কংক্রিটের গুঁড়ো এবং উত্তর ভারতের ক্ষেত্রে খড় পোড়ানোর ছাইকে দায়ী করছেন। স্কাইমেট নামে একটি বেসরকারি আবহাওয়া বিশেষজ্ঞ সংস্থা গোটা পৃথিবীর বায়ুদূষণের মাত্রা নিয়ে একটি সমীক্ষা করেছে। তাদের সেই সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, ভারতের রাজধানী শহর দিল্লিতে বায়ুদূষণ সব থেকে বেশি।

পাঁচ নম্বরে রয়েছে কলকাতা। আর মুম্বই রয়েছে ন’নম্বরে। শ্বাসযোগ্য বায়ু প্রতিটি শিশুর অধিকার। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ধনী দেশগুলির ক্ষেত্রেও এই সমীক্ষা করেছিল। সেখানে দেখা গিয়েছে, ৫২ শতাংশ শিশুর উপরে বায়ুদূষণ প্রভাব ফেলছে। গোটা বিশ্বের ক্ষেত্রে নাবালকদের ৯৩ শতাংশ এই বিষবায়ুর কবলে পড়ছে বলেও ডব্লিউ এইচ ও জানিয়েছে। অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের উপরে সমীক্ষা করে দেখা গিয়েছে, নবজাতকের ওজনের উপরেও প্রভাব ফেলছে এই দূষণ। দিল্লির এয়ার কোয়ালিটি ইন্ডেক্স হল (একিউআই) ৫২৭। কলকাতার একিউআই হল ১৬১। আর মুম্বইয়ে ১৫৩। স্কাইমেটের এই সমীক্ষার আগে সম্প্রতি আইকিউ এয়ার ভিজুয়ালও দিল্লি নিয়ে মারাত্মক রিপোর্ট দিয়েছিল। তাতেও বলা হয়েছে, দিল্লিতে বায়ুদূষণের মাত্রা গোটা পৃথিবীর সব শহরের মধ্যে সব থেকে বেশি। সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউ এইচ ও) একটি রিপোর্টে এ কথা বলা হয়েছে ভারতের পাঁচ বছরের কম বয়সের শিশুদের ৯৮ শতাংশ বায়ুদূষণের প্রকোপে পড়ছে। প্রতি ১০টি শিশু মৃত্যুর জন্য প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষে দায়ী থাকছে বায়ুদূষণ। ডব্লিউ এইচ ও জানিয়েছে, এই দূষণ বাতাসে ভাসমান সুক্ষ্ম ধূলিকণার (পিএম ২.৫) মাত্রা ধরে করা হয়েছে। বাতাসে ভাসমান ধূলিকণাকে সাধারণত দু’ভাগে ভাগ করা হয়। একটি সুক্ষ্ম ধূলিকণা, অন্যটি ভাসমান ধূলিকণা (পিএম ১০)। কিন্তু পরিবেশবিদদের মতে, পিএম ২.৫ শরীরে রোগসৃষ্টির ক্ষেত্রে মারাত্মক। কারণ, এই ধূলিকণা সরাসরি শ্বাসনালিতে ঢুকে যায়। ফুসফুসে এবং রক্তেও মেশে তা। শ্বাসনালি ছাড়াও মস্তিষ্ক-সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গে রোগ সৃষ্টি করে।দিল্লির বায়ুদূষণের থেকে কলকাতায় বায়ুদূষণের মাত্রা কম হলেও, কম বিপজ্জনক নয়। দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের এক বিশেষজ্ঞের কথায়, কলকাতা বায়ুদূষণের নিরিখে গোটা পৃথিবীর মধ্যে পঞ্চম স্থানে রয়েছে। এটুকু শুনেই সাধারণের বোঝা উচিত বিপদ ঘণ্টা বাজছে এখানেও

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!