প্রেমিকের বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠল প্রেমিকার পরিজনদের বিরুদ্ধে

allegation of assault on a boyfriend's house has led to allegations
সনাতন মন্ডল(ভাই)
আজবাংলা মালদা : প্রেমের সম্পর্ককে পরিণতি দিতেই বাড়ির অমতে বিবাহ প্রেমিক প্রেমিকার।তারপরই প্রেমিকের বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠল প্রেমিকার পরিজনদের বিরুদ্ধে।নব দম্পতিকে না পেয়ে প্রেমিকের ভাই ও মা’কে অপহরণের চেষ্টা,চলে ব্যাপক মারধর সহ অস্ত্রের আঘাত।তাদের বাঁচাতে গেলে প্রতিবেশী যুবককেও ধারালো অস্ত্রের কোপ মারার অভিযোগ।দুষ্কৃতীদের হাত থেকে বাদ পড়েনি গ্রামের মহিলা সহ বৃদ্ধরাও।ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য মালদার মানিকচক থানার নাজিরপুর অঞ্চলের নিরঞ্জনপুর ভেস্ট পাড়ায়।প্রেমিকার পরিজনদের আবারও হামলার ভয়ে আতঙ্কিত গ্রামবাসী। স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে,নিরঞ্জনপুর ভেস্ট পাড়ার বাসিন্দা চৈতন্য মণ্ডল( 25)ও রতুয়া থানার আটগামা এলাকার মেয়ে মোনো মন্ডলের দীর্ঘদিনের প্রেম।চৈতন্য মন্ডল মোনোর গৃহ শিক্ষক থাকা কালীন প্রেম সম্পর্কে আবদ্ধ হন।প্রেমিক চৈতন্য মানিকচকের একটি বেসরকারি কলেজ এ পরান।প্রেমিকা মোনো মন্ডল মানিকচক কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।তবে সম্প্রতি নিজেদের বাড়িতে প্রেম সম্পর্কের কথা জানাই প্রেমিক প্রেমিকা।কিন্তু চৈতন্য মন্ডলের সাথে বিয়ে দিতে নারাজ মোনোর বাড়ির লোকজন।শেষমেষ গত এক মাস আগে গোপনে রেজিস্ট্রি বিবাহ করেন চৈতন্য ও মোনো। গত সোমবার মালদা ইংরেজবাজার থানার অমৃতি এলাকার এক আত্মীয়ের বাড়ি থেকে তারা স্থানীয় এক মন্দিরে নিজেদের সামাজিক বিয়েও সেরে ফেলেন।তবে প্রেমিকার পরিবারের অমতে এই বিয়ের পর থেকেই ঝামেলা এড়াতে গা ঢাকা দেন নব দম্পত্তি।তারপর থেকেই মেয়ের তল্লাশিতে বারবার চৈতন্য বাড়ি হানা দিতে থাকে মোনোর বাড়ির লোকজন।পুরো ঘটনাই ক্ষুব্ধ প্রেমিকার পরিজনেরা এদিন রাতে চড়াও হয় প্রেমিকের বাড়িতে।সেখানে তাদের না পেয়ে চৈতন্যের ছোট ভাই সনাতন মন্ডল কে অপহরণ করে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং মা মতি মন্ডলকে ব্যাপক মারধর করেন। শ্লীলতাহানীও করে বলে অভিযোগ। চিৎকারে তাদের বাঁচাতে ছুটে আসে প্রতিবেশিরা।দুষ্কৃতীরা প্রতিবেশীদের ও মারধর করে। প্রতিবেশী মাগনি রাম মন্ডল নামে এক ব্যক্তিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাতে কোপ মারে।তিনি বর্তমানে মানিকচক গ্রামীণ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।
অভিযোগ,এদিন রাতে ২৫ থেকে ৩০ জন বাইক বাহিনী আগ্নেয়াস্ত্র, ভোজালি ,হাসুয়া সহ চড়াও হয় প্রেমিক চৈতন্যের ভেস্ট পাড়ার বাড়িতে।প্রেমিকার বাবা বিকাশ মণ্ডল ও কাকা অশোক মন্ডল এই দুষ্কৃতী আমলার নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন বলে অভিযোগ।পরে গ্রামবাসী জড়ো হয়ে দুষ্কৃতীদের তাড়া করলে এলাকা ছেড়ে পালায়। এখনও এলাকায় আতঙ্কের ছায়া।প্রতিবেশী ইন্দ্রদেব মন্ডল ,উত্তম মণ্ডল দের আশঙ্কা আবারও হামলা করতে পারে মেয়ের বাড়ির লোকজন।এদিকে প্রেমিক চৈতন্যের মা মতি মন্ডল হামলার প্রতিবাদে প্রেমিকা মেনোর বাড়ির লোকজনদের বিরুদ্ধে মানিকচক থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, এই ঘটনার সাথে যুক্ত ২ জন দুষ্কৃতীকে গ্রেফতার করেছে রতুয়া থানার পুলিশ।সাথে ঘটনার তদন্ত চলছে।