শ্রাবন মাসে অমরনাথ শৈব তীর্থের আকর্ষণ অপ্রতিরোধ্য

শ্রাবন মাসে অমরনাথ শৈব তীর্থের আকর্ষণ অপ্রতিরোধ্য
আজবাংলা     অমরনাথ গুহা একটি হিন্দু তীর্থক্ষেত্র যা ভারতের জম্মু ও কাশ্মীরে অবস্থিত | এটি একটি শৈব তীর্থ | এই গুহাটি সমতল থেকে ৩,৮৮৮ মিটার (১২,৭৫৬ ফুট) উঁচুতে অবস্থিত | জম্মু ও কাশ্মীরের রাজধানী শ্রীনগর থেকে ১৪১ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত এই মন্দির | গুহার ভিতরে ৪০ মিটার ভিতরে গুহার ছাদ থেকে ফোটায় ফোটায় জল চুইয়ে পড়ে | এই চুইয়ে পড়া জলের ধারা জমতে জমতে গুহার মেঝেতে পরে | সেই জল জমে গিয়ে শিব লিঙ্গের আকার ধারণ করে | কখনো কখনো এই শিব লিঙ্গ ৮ ফুট উঁচুও হয়ে যায় | জুন-জুলাই মাসে শ্রাবণী পূর্ণিমা থেকে শুরু হয় অমরনাথ যাত্রা | লক্ষ লক্ষ তীর্থ যাত্রীরা অমরনাথের উদ্দ্যেশ্যে যাত্রা শুরু করেন | শেষ হয় জুলাই-আগস্ট মাসে গুরু পূর্ণিমার সময় ছড়ি মিছিলে | লক্ষ লক্ষ ভক্ত আমেনাথ উদ্দেশ্যে রওনা হন | সেখানে পৌঁছে প্রধান উদ্দেশ্যই হল এই শিব লিঙ্গে পূজা দেওয়া | ধারণা করা হয় মধ্যযুগে মানুষে ভুলে গিয়েছিল অমরনাথের কথা | ফের ১৫ শতকে অমরনাথ শিবের এই মন্দির আবার পুনরায় আবিষ্কৃত হয় | প্রচলিত আছে কাশ্মীর একসময় জলে প্লাবিত হয়ে যায় এবং কাশ্যপ মুনি নদীর মাধ্যমে সে জল বের করে দেন | এরপর ভৃগু মুনি অমরনাথ শিবের দেখা পান | এরপরেই আবার অমরনাথের প্রচার শুরু হয় | বর্তমানে প্রতি বছর কয়েক লক্ষ মানুষ অমরনাথ যাত্রা করে | অমরনাথের গুহা শিবলিঙ্গ ছাড়াও মহামায়া শক্তিপীঠের জন্যও প্রসিদ্ধ | সতীর ৫১টি পীঠের অন্যতম এই পীঠ | এখানে সতীর গলা পড়েছিল বলে মনে করা হয় | প্রতি বছর শ্রাবণ পূর্ণিমা পর্যন্ত চলে অমরনাথ যাত্রা | তারপর চাঁদ যত ছোট হতে থাকে, ততই ছোট হয় বরফের শিবলিঙ্গ |