শিলিগুড়ি পুরনিগমের মুখ্য প্রশাসক হতে চলেছেন অশোক ভট্টাচার্য

আজবাংলা    শিলিগুড়ি     রাজ্যের পুরসভাগুলির মেয়াদ শেষ হলেও, করোনা আবহে কোথাও কোনও ভোট করার পরিস্থিতি নেই। তাই কাজ চালু রাখতে বোর্ড অফ অ্যাডমিনিস্ট্রেটর বা প্রশাসকমণ্ডলী নিয়োগের পথেই হেঁটেছে রাজ্য সরকার। কলকাতা পুরসভায় সেই প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। বিদায়ী মেয়র ফিরহাদ হাকিমকে শীর্ষে রেখে তৈরি হয়েছে প্রশাসকমণ্ডলী। তাতে অন্যান্য সদস্য হিসেবে রয়েছেন মেয়র পারিষদরা। এবার শিলিগুড়ি পুরনিগমের পালা। সেখানে বাম পরিচালিত পুরবোর্ডের মেয়াদও শেষ হয়ে যাচ্ছে। আর প্রশাসক বোর্ড তৈরি করতে বিদায়ী মেয়র অশোক ভট্টাচার্যের উপরই আস্থায় রাখল পুরদপ্তর। পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম বলছেন, ' করোনার জেরে দেশে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি চলছে। মানুষ এখন নিজের জীবন বাঁচাতে ব্যস্ত। এখন রাজনীতি করার সময় নয়, যাঁরা করছেন, ভুল করছেন। মানবিক মুখ্যমন্ত্রী বিরোধী দলের বিধায়ক ও বামফ্রন্ট পুরবোর্ডের মেয়রকেই চেয়ারম্যান করে প্রশাসক বোর্ড গড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। অশোকবাবু ও তাঁর পারিষদরা সমস্ত দলের প্রাক্তন কাউন্সিলরকে নিয়ে করোনার ভয়ানক পরিস্থিতিতে শিলিগুড়ির মানুষকে ভাল পরিষেবা দিতে পারবেন বলে মনে করা হচ্ছে। তাই 'আমরা-ওরা' না বামফ্রন্টের মেয়রকেই মুখ্য প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব দিচ্ছে রাজ্য সরকার।'অশোক নিজে এ বারে কলকাতায় মেয়রকে রেখে প্রশাসক বোর্ড গড়ার বিরোধিতা করেছিলেন। তাঁকে যখন প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান করা হল, তিনি তখন কী বলছেন? অশোকের কথায়, ‘‘কলকাতা পুরসভার আইনে এই ভাবে প্রশাসক বোর্ড করার সুযোগ ছিল না। সেটা নিয়ে আমিও প্রশ্ন তুলেছিলাম। পশ্চিমবঙ্গ পুর আইন ২০০৬-এ কিন্তু সে সুযোগ আছে।’’ তবে এই ব্যাপারে মন্ত্রী বা সচিব, কেউই তাঁর সঙ্গে এখন পর্যন্ত যোগাযোগ করেননি বলে জানান তিনি। বিষয়টি নিয়ে দলের মধ্যে কথা হবে বলেও জানিয়েছেন অশোক।তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে, শীর্ষ নেতৃত্ব চাননি করোনার আবহে নতুন কোনও বিতর্ক তৈরি হোক। দার্জিলিং জেলা তৃণমূল সূত্রে বলা হচ্ছে, সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার আগে বিষয়টি নিয়ে দলের শীর্ষ নেতানেত্রীরা জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের সঙ্গে কথা বলেন। পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেব বলেন, ‘‘মুখ্যমন্ত্রী যে দল-নিরপেক্ষ প্রশাসন চালান, তার প্রকৃত উদাহরণ হয়ে রইল এই সিদ্ধান্ত। অশোক ভট্টাচার্যকে প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান করার মধ্য দিয়ে তিনি সেটা স্পষ্ট করেছেন।’’ তিনি আরও জানান, করোনা পরিস্থিতিতে সারা রাজ্যে যেটা মডেলটা করা হচ্ছে, সেটাই করা হল শিলিগুড়িতেও। তাঁর কথায়, ‘‘সেই মতো অশোক ভট্টাচার্য যেহেতু মেয়র ছিলেন, তাই তাঁকেই প্রশাসক বোর্ডের প্রধান করা হল। না হলে অন্য কাউকে তো করাই যেত।’’