আবারও রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের কনভয়ের উপর হামলা।

কোচবিহারে আক্রান্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ
কোচবিহারে আক্রান্ত বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ

আজবাংলা কোচবিহার    শুক্রবার মাথাভাঙার সিতাই মোড়ে লাঠির আঘাতে ভেঙে দেওয়া হল রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের গাড়ির কাঁচ। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই উত্তেজনা ছিল নাটাবাড়ি বিধানসভা কেন্দ্রের ঝিনাইডাঙা এলাকায়। এর মাঝে আজ দুপুরে কোচবিহারের মাথাভাঙার সিতাই মোড়ে হামলা হল দিলীপ ঘোষের গাড়িতে । লাঠির আঘাতে ভেঙে দেওয়া হল গাড়ির কাঁচ। পুলিশের সামনেই চলে হামলা | অল্পের জন্য রক্ষা পান দিলীপ ঘোষ।যদিও কোচবিহারের তৃণমূল নেতা তথা দিনহাটার বিধায়ক উদয়ন গুহর দাবি, “তৃণমূলের বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ চাপানো হচ্ছে। এই ঘটনা বিজেপি-র গোষ্ঠী দ্বন্দ্বের ফল।” এই ঘটনার আগে, বুধবার গভীর রাতে ওই সভার অদূরে বোমা হামলার ঘটনা ঘটল | স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত বারোটা পরে এলাকায় বোমাবাজির শব্দ শোনা যায় | তবে তা খুব তীব্র নয় | পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। এলাকায় আতঙ্ক কাটাতে শুরু হয় পুলিশি টহল। বিজেপি নেতারা এই ঘটনাকে তেমন গুরুত্ব না দিলেও তাদের দাবি সভা ভেস্তে দিতেই এই ঘটনা ঘটিয়েছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতিরা এই ঘটনার প্রতিবাদে ইতিমধ্যে কলকাতা-সহ রাজ্যের একাধিক স্থানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে শুরু করেছে বিজেপি কর্মীরা। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে বিজেপির কর্মীরা। যার ফলে সাময়িক ভাবে স্তব্ধ হয়ে যায় শহরের যান চলাচল। আগামিকাল থেকে কোচবিহার দিয়েই বিজেপির রথযাত্রা কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা। সেখানে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের। সেই কারণে গোটা জেলাজুড়ে রাজনৈতিক পরিস্থিতি বেশ উত্তপ্ত। এই ঘটনার পরই পুলিশ ও তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। তাঁর অভিযোগ, বিজেপিকে ভয় পেয়েই তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে। এখানেই শেষ নয়, পুলিশের উপস্থিতিতে কীভাবে এমন ঘটনা ঘটল, সেই বিষয়েও প্রশ্ন তুলেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। প্রশাসনের বিরুদ্ধে তিনি অভিযোগ করেছেন, ইচ্ছাকৃত ভাবে ওই স্থানে কম পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে এবং পুলিশের চোখের সামনেই তাঁদের গাড়িতে হামলা চালানো হয়েছে।