শরীর সুস্থ রাখতে চান? তাহলে রোজ খান কমলালেবু

শরীর সুস্থ রাখতে চান? তাহলে রোজ খান কমলালেবু

আজ বাংলা: কমলালেবু...অত্যন্ত ভালো ফল। শীতের মরশুমে এই কমলালেবুর উপকারিতার শেষ নেই। প্রায় সকলেরই প্রিয় একটি ফল এটি। আর এই ফলের উপকারিতাও রয়েছে অনেক। এমনকি কমলালেবুর খোসা পর্যন্ত উপকারী। 



এদিকে কমলালেবু আমাদের বহু রোগ নিরাময়েও সাহায্য করে থাকে। তাই শীতের মরশুমে নিয়মিত কমলালেবু খাওয়া আমাদের স্বাস্থের পক্ষে উপকারী। তাহলে আসুন জেনে নিন কমলালেবুর নানা উপকারিতা সম্পর্কে..

স্ট্রোকের হাত থেকে রক্ষা করে: কমলালেবু জাতীয় ফল আমাদের স্ট্রোক হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারে। তাই নিয়মিত কমলালেবু খেলে স্ট্রোকের সম্ভাবনা অনেকটাই দূর হবে। 

ত্বকের যত্নে কমলালেবু: কমলালেবুর মধ্যে উপস্থিত ভিটামিন সি যা ত্বকে ব্রণ হওয়া থেকে শুরু করে যাবতীয় সমস্যা দূর করে। এবং ত্বককে আরও লাবণ্যময় করে তোলে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ রাখতে সাহায্য করে: উল্লেখ্য কমলালেবুতে উপস্থিত পটাশিয়াম শরীরের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত কমলালেবু খাওয়া আমাদের পক্ষে খুবই উপকারী।

এছাড়া ডায়াবেটিক রোগীর জন্যও এই ফল খুব দরকারি। তবে ডায়াবেটিক রোগীরা মিষ্টি কমলালেবু না খেয়ে টক লেবু খাবেন। কিছুটা টক লেবু তাদের জন্য বয়ে আনবে সুফল। এই ফল শরীরে টক্সিন এর পরিমাণ কমায়।

বেড়ে যাওয়া টক্সিন দেহে বিভিন্ন রকম অসুখ তৈরী করে। তাই নিয়মিত কমলালেবু খান। তবে এই ফলে পটাশিয়াম আছে। যা কিডনীর জটিলতায় আক্রান্ত সকল রোগীর জন্য খাওয়াটা উচিত হবেনা।

চিকিত্‍সক এর পরামর্শ মেনে খাওয়া উচিত্‍। যেকোনো ঘা, জিহ্বায় ঘা, কাটা ও সেলাইজনিত চামড়া, মাংসপেশী শুকানোর জন্য কমলালেবু ভীষণ উপকারী ফল। গবেষণায় দেখা গেছে, যারা নিয়মিত এই ফল খায়, তাদের দাঁত এর অসুখ হয় তুলনামূলক ভাবে কম। তবে শুধু এই ফল খেলে চলবেনা।

নিয়মিত দাঁতের যত্ন নিতে হবে। চোখের পাতায় ইনফেকশন, চোখ ওঠা ভীষণ ছোঁয়াচে রোগ। এই অসুখ গুলোর বিরুদ্ধ লড়াই করে কমলালেবু। কমলালেবু তে লিপিড নেয়।

তাই যারা ওজন কমাতে চান, তারা দুশ্চিনতামুক্ত হয়ে এই ফল খান। ঠোট ও পায়ের গোড়ালি ফেটে যাওয়া রোধ করে ভিটামিন সি এবং ভিটামিন এ। এই দুই ধরনের ভিটামিন এই ফলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। এই ফলের পুষ্টিগুণ তাড়াতাড়ি নষ্ট হয়।