বিজেপি রাজ্য সভাপতির অপসারণের দাবিতে সরব হল পুরুলিয়ার বিজেপি কর্মীরা

BJP workers of Purulia have been demanding the removal of BJP'
বিজেপি রাজ্য সভাপতির অপসারণের দাবিতে সরব হল পুরুলিয়ার বিজেপি কর্মীরা

আজবাংলা পুরুলিয়া   বিভিন্ন জেলায় বিজেপি কর্মীদের বসিয়ে রাখা হয়েছে। দলের কাজে লাগানো হচ্ছে না। আর সেজন্যই দিলীপ ঘোষের অপসারণ দাবি করেছেন বিজেপি কর্মীরা। তাঁদের অভিযোগ, পঞ্চায়েতে বিজেপি ভালো কাজ করার পরও দলে দলে নেতা-কর্মী তৃণমূলে চলে যাচ্ছেন। আর তাতে মদত দিচ্ছেন বিদ্যাসাগর ও দিলীপ ঘোষ। দুজনেই তৃণমূলের ক্যাডার হয়ে কাজ করছেন বলে অভিযোগ তোলা হয়েছে। আর সেইজন্য কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে আবেদন করা হয়েছে যাতে পুরুলিয়ায় রথ আসার আগেই দিলীপ ঘোষকে সরিয়ে দেওয়া হয়। নাহলে অনশনের হুমকিও দেওয়া হয়েছে। পুরুলিয়ার বিজেপি সভাপতি বিদ্যাসাগর চক্রবর্তীর বিরুদ্ধেও গুরুতর অভিযোগ আনা হয়েছে। কর্মীদের হয়ে যুব নেতা হরি হালদারের দাবি, দিলীপ ঘোষ ও বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী দুজনেই যৌথভাবে ষড়যন্ত্র ও দুর্নীতি করে পুরুলিয়া বিজেপির সংগঠন নষ্ট করে দিচ্ছেন। এছাড়া রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় বিজেপি কর্মীদের বসিয়ে রাখা হয়েছে। দলের কাজে লাগানো হচ্ছে না।বৃহস্পতিবার, পুরুলিয়া শহরের একটি বিক্ষোভ মিছিল করেন তাঁরা। স্থানীয় ভিক্টোরিয়া  স্কুল মোড় থেকে সূচনা হওয়া ওই মিছিলে যোগ দেন জেলার বিভিন্ন প্রান্তের বিজেপি নেতা ও কর্মীদের একটা অংশ। মিছিলটি স্থানীয় পোস্ট অফিস মোড়ে থামে। সেখানেই বিজেপির রাজ্য সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ করে ঝালদা থেকে আসা বিজেপির যুব নেতা হরি হালদার বলেন, দিলীপ ঘোষ এবং বিদ্যাসাগর চক্রবর্তী মহাশয় যৌথভাবে দুর্নীতি করে পুরুলিয়ায় দলের যা সংগঠন ছিল তা ধ্বংস করতে উঠে পড়ে লেগেছেন। তা ছাড়া পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় বিজেপি কর্মীদের বসিয়ে রাখা হয়েছে। তাঁদেরকে দলের কাজে লাগানো হচ্ছে না। এটা পুরুলিয়া জেলায় শুধু নয় সরা রাজ্যে হচ্ছে। তাই, এদিন স্লোগান দিয়েছি দিলীপ ঘোষ হটাও বিজেপি বাঁচাও।’আগামীকাল রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বৈঠকে ডাকা আমন্ত্রণ পত্র প্রত্যাখ্যান করেছি আমরা। দলীয় কার্যালয়ে তার সঙ্গে বৈঠক করার কথা বলেছিলেন তিনি। রাজ্য ও জেলা সভাপতি অপসারণ না হলে ডিসেম্বরে পুরুলিয়ায় আসা দলীয় রথের সামনে অনশনে বসবো।’