কালো আপেল কেন এত দামী?

কালো আপেল কেন এত দামী?

রূপকথা নয়, বাস্তবের মাটিতেই ফলে এই আপেল। দক্ষিণ আমেরিকার আরকানসাসে গেলেই এই কালো আপেল বাগানের দেখা মিলবে। স্বাদে হুবহু আপেল, শুধু রং কালো। আপনি সম্ভবত ‘কালো আপেল’ সম্পর্কে কখনো শোনেননি। দক্ষিণ আমেরিকার আরকানসাসে গেলেই এই কালো আপেল বাগানের দেখা মিলবে। স্বাদে হুবহু আপেল, শুধু রং কালো। কিন্তু চীনের তিব্বতে কালো আপেল চাষ হয়। সারা বিশ্বজুড়ে বাগানে সাধারণত চাষ করা হয় লাল, সবুজ, হলুদ বা তিন রঙের মিশ্রিত রঙের আপেল। তবে চীনের তিব্বতে অতি গাঢ় বেগুনি আপেলকে বস্তুত কালো আপেলই বলা যায়। 

কালো ডায়মন্ড আপেল হচ্ছে হুয়া নিউ আপেলের (চীনে রেড ডালিসিয়াস নামে পরিচিত) একটি প্রজাতি, যা চীনের স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল তিব্বতের নিইংচি অঞ্চলে অনন্য গাঢ় রক্তবেগুনি রঙ ধারণ করে। চীনা কোম্পানি ডান্ডং তিয়ানলু শেনগ নং ই-কমার্স ট্রেড লিমিটেড সমুদ্রতল থেকে ৩,১০০ মিটার উচ্চতার ৫০ হেক্টর ফলের বাগান তৈরি করেছে, এই রহস্যময় ফলটির উৎপাদন বাড়ানোর জন্য। এটিকে কালো আপেল চাষের জন্য আদর্শ স্থান হিসেবে তৈরি করা হয়েছে। বাজার চলতি আপেলের মতো এই প্রজাতির আপেলের ফলন তুলনামূলক কম। পাঁচ থেকে ছয় বছর লাগে এই আপেল ফলতে।

এই ফলগুলো কালো হয়ে যাওয়ার প্রধান কারণ হলো দিন এবং রাতের মধ্যকার তাপমাত্রায় উল্লেখযোগ্য পার্থক্য এবং তীব্র সূর্যালোক এবং অতিবেগুনি আলো, যা থেকে তাদের ত্বক গাঢ় লাল থেকে কালো-বেগুনি রঙের বৈশিষ্ট্য ধারণ করে। ‘কালো ডায়মন্ড আপেল রক্তবর্ণ, উজ্জ্বল এবং গঠনশৈলী চমৎকার। বাইরে থেকে আপেল দেখতে প্রায় মোমবাতির মোমের মতো এবং হীরার মতো সুন্দর। এসব কারণেই আপেলগুলোর নাম ব্লাক ডায়মন্ড আপেল’Ñ বলেছেন ডান্ডং তিয়ানলু শেনগ নং ই-কমার্স ট্রেড লিমিটেডের বাজার পরিচালক ইউ ওয়েনক্সিন।

বেইজিং, সাংহাই, গুয়াংঝু এবং শেনঝনে শুধু বাছাইকৃত উঁচুমানের সুপার মার্কেটগুলোতে ছয় থেকে আটটি বিরল আপেল ফলের উপহার প্যাকেজ বিক্রি করা হয়। চীনা ভাষার টেনসেন্ট নিউজের খবরে থেকে জানা যায়, কালো ডায়মন্ড আপেলের প্রতিটার দাম ৫০ ইয়ান। ইউ ওয়েনক্সিন বলেন, চীনে সীমিত উৎপাদন এবং বিতরণ খরচ তুলনামূলকভাবে খুব বেশি হওয়ায় উচ্চমূল্যের কালো ডায়মন্ড আপেল বাজারে দামি ফল হওয়ার অন্যতম কারণ।

বেশির ভাগ উপহার প্যাকেজে ৬-৮টি আপেল বিক্রি করা হয়। গত বছর চীনের প্রথম সারির শহরগুলোর উচ্চমানের সুপার মার্কেটগুলোতে এসব আপেল বিক্রি করা হয়েছিল, ক্রেতারা এ ফলগুলো খুবই সাদরে গ্রহণ করেছিল। বিশেষ ভৌগোলিক অবস্থার সাথে সাথে কালো ডায়মন্ড আপেলগুলোর চাহিদা বাড়লে চাষিরা এ প্রজাতির আপেল উৎপাদনে আগ্রহী হয়ে উঠবে বলে মনে করা হচ্ছে। কালো ডায়মন্ড আপেলের উৎপাদনের পদ্ধতি রহস্যপূর্ণ রয়েই গেছে।

একটি বাজার চলতি আপেলের মধ্যে চার গ্রাম ফাইবার এবং এপিক্যাটেচিন নামে একটি উপাদান থাকে যা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। কালো আপেলের মধ্যে এই উপাদান থাকে না বললেই চলে। তা সত্ত্বেও কালো আপেলের দাম অনেক বেশি। এক একটি আপেল বিক্রি হয় ৫০০ থেকে দেড় হাজার টাকার মধ্যে। এই আপের সরাসরি গাছ থেকে পেড়ে খাওয়া যায় না। সে ক্ষেত্রে স্বাদ অতটা ভাল লাগবে না। এই আপেল বেশ কিছু দিন রেফ্রিজারেটরে রেখে তার পর খেতে হয়।