রণক্ষেত্র বীরভূম পুলিশের সামনেই সংঘর্ষ, বোমাবাজি, দুষ্কৃতীদের তাণ্ডব, গুলিতে নিহতর নাম শেখ দিলদার।

bombs in front of the battlefield of Birbhum police
রণক্ষেত্র বীরভূম পুলিশের সামনেই সংঘর্ষ, বোমাবাজি

আজবাংলা আজ বেলা ১১টা থেকে ফের মনোনয়ন জমা দেওয়া যাবে বলে জানানো হলেও সকাল থেকে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে অশান্তির খবর আসা শুরু হয়েছে। ব্যাপক সংঘর্ষ, বোমাবাজি, দুষ্কৃতীদের তাণ্ডব। সংঘর্ষের খবর পাওয়া গিয়েছে বীরভূম, মুর্শিদাবাদ, বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর থেকে। বিভিন্ন জেলা থেকে সংঘর্ষের খবর আসতে শুরু করেছে মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়ায় বিরোধীদের ওপর চড়াও হয় দুষ্কৃতীরা। অশান্তি হয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুরের চন্দ্রকোণাতেও। মনোনয়ন ঘিরে রক্তাক্ত সিউড়ি। চলেছে তৃণমূল ও বিজেপি সংঘর্ষ। গুলিতে মৃত্য হয়েছে  সিউরির 1 নং ব্লকের  একজনের। মৃত ব্যাক্তিনাম দিলদার সেখ, অভিযোগের তির শাসক দলের দিকে।

 

ঘটনার জেরে তপ্ত বীরভূমের সদর শহর সিউড়ি। খবর পেয়ে এলাকায় পৌঁছেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। যদিও এবিষয়ে এদিন দুপুর পর্যন্ত কোনও মন্তব্য করতে চাননি জেলা পুলিশ সুপার নীলকান্তম সুধীরকুমার। সূত্রের খবর  নিহতর নাম শেখ দিলদার। বিজেপির দাবি, দিলদার তাঁদের কর্মী। অপর গুলিবিদ্ধ শ্যামসুন্দর গরাইও তাঁদেরই সক্রিয় কর্মী বলে দাবি করেছেন বিজেপির স্থানীয় নেতৃত্বরা। সোমবার সকালেই বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের কাছে কমিশনের বিরুদ্ধে নালিশ জানিয়ে মামলা করার অনুমতি চায় কংগ্রেস। দলের তরফে ঋজু ঘোষাল অভিযোগ করেন, কমিশন শীর্ষ আদালত ও সিঙ্গল বেঞ্চের নির্দেশ মানছে না। সোমবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়াকে ঘিরে রাজ্য জুড়ে যে অশান্তির ছবি দেখা গেল, তা মঙ্গলবার আদালতে বিরোধীদেরই হাত শক্ত করবে। কারণ, আদালত কমিশনকেই দায়িত্ব দিয়েছিল যাতে সবাই বিনা বাধায় মনোনয়নপত্র দাখিল করতে পারেন। কিন্তু বাস্তবে সোমবারের চিত্র দেখা গেল সম্পূর্ণ উল্টো। বিরোধীরা নির্বাচনকে ঘিরে যে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলেছেন, সোমবারের অশান্তির ছবি সেই দাবিকেই জোরালো করবে আদালতে। মৃতের নাম শেখ দিলদার বলে জানা গিয়েছে। প্রাথমিকভাবে পাওয়া খবরে তিনি বিজেপি সমর্থক বলে জানা গিয়েছে। যদিও অনুব্রত মণ্ডলের দাবি, নিহত ব্যক্তি তৃণমূলের সমর্থক। বিজেপি বাইরে থেকে দুষ্কৃতীদের এনে তাঁকে খুন করিয়েছে।