ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারে ব্যবসা ধর্মঘটের জেরে ভোগান্তির শিকার সাধারন মানুষ

ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারে ব্যবসা ধর্মঘট

দেবু সিংহ আজবাংলা মালদা     সবজি বাজারে  পার্কিংয়ের জায়গায় বেআইনিভাবে  দখল করে ব্যবসা চালানোর প্রতিবাদে রেগুলেটেড মার্কেট ধর্মঘটে সামিল হলেন ব্যবসায়ীরা।  সোমবার সকাল থেকেই ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারে ব্যবসা ধর্মঘটের জেরে খুচরো সবজি ও সহ নানান খাদ্য সামগ্রী বেচাকেনা বন্ধ হয়ে যায় । যার ফলে ভোগান্তির মুখে পড়তে হয় শহরের ব্যবসায়ীদের ।যারা সেখান থেকে প্রতিনিয়ত সবজি সহ বিভিন্ন ধরনের আনাজপাতি কিনে শহরে ব্যবসা করেন। যদিও এই ঘটনার বিরুদ্ধে পাল্টা তোপ দেগেছেন ওই বাজারে অবস্থিত ব্যবসায়ীদের আরেকটা অংশ । যারা নিয়ন্ত্রিত বাজারের পার্কিংয়ের জায়গা দখল করে রেখেছেন।  তাদের বক্তব্য জেলা প্রশাসনের কথা মতো তারা এই এলাকায় খোলা আকাশের নিচে বসে ব্যবসা শুরু করেছেন। কোন পার্কিংয়ের জায়গা দখল করা হয় নি। তাদের বিরুদ্ধে পাল্টা ভিত্তিহীন অভিযোগ করা হয়েছে।  যদিও ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজার ধর্মঘটের বিষয়টি জেনে মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অব কমার্সের কর্তারা দুই পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করার প্রস্তাব দিয়েছেন।  যদিও এই প্রস্তাবে এখনো পর্যন্ত কোন পক্ষই সামিল হন নি।

 

business strikes in the English-controlled market
ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারে ব্যবসা ধর্মঘট

ইংরেজবাজার রেগুলেটেড মার্কেট ফ্রুট এন্ড ভেজিটেবল কমিশন এজেন্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সম্পাদক অশোক দাস বলেন,  নিয়ন্ত্রিত বাজার সংস্কারের কাজ চলছে । আমরা আগে মালদা শহরে ব্যবসা করতাম।  ২৪৮ জন ব্যবসায়ীকে এই নিয়ন্ত্রিত বাজারে জায়গা দেওয়া হয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে । ২০০৬ সালে আমরা এই নিয়ন্ত্রিত বাজারে এসে সবজিসহ আনাজপাতির ব্যবসা শুরু করি । হোলসেল মার্কেটের এই বাজার থেকেই শহরের অন্যান্য ব্যবসায়ীরা কেনাকাটা করে নিয়ে যান।  কিন্তু আমাদের যে পার্কিং-এর  জায়গাটি রয়েছে সেই জায়গায় এখন বেআইনিভাবে কিছু ব্যবসায়ীরা দখল করে তাদের ব্যবস্থাপত্র চালাচ্ছেন।  এমনকি প্রকৃত ফরেদের জায়গা দখল করে রাখা হয়েছে।‌ চাষীদের কাছ থেকে সস্তা দরে সবজি আনাজপাতি কিনে তারা কালোবাজারি করছেন।  এই ঘটনার প্রতিবাদে ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজার ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে।  অবিলম্বে পার্কিংয়ের জায়গা ফাঁকা করে দিতে হবে।  যারা ওই এলাকায় বেআইনিভাবে দখল করে ব্যবসা চালাচ্ছে তাদেরকে সরে যেতে হবে । সমস্ত বিষয় নিয়ে আমরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানিয়েছিলাম।  কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সদুত্তর না মেলায় বাধ্য হয়েই নিয়ন্ত্রিত বাজার ধর্মঘটে সামিল হয়েছি । দাবি  না মানলে এই আনাজপাতি সবজির ধর্মঘট চলবে।

business strikes in the English-controlled market
ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারে ব্যবসা ধর্মঘট

অন্যদিকে মালদা প্রগ্রেসিভ ভেজিটেবিল বিজনেসম্যান ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশনের সম্পাদক তরুণ ঘোষ বলেন,  তারা ওই সংগঠনের ধর্মঘটে সামিল হবেন না । কারণ যে অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধে তোলা হচ্ছে পুরোপুরি ভিত্তিহীন ।কোন পার্কিং এলাকায় তারা দখল করে বসে নেই।  প্রশাসন থেকে তাদের নিয়ন্ত্রিত বাজারে সবজি আনাজপাতি নিয়ে বসতে বলা হয়েছিল । সেই কথা মতোই তারা খোলা আকাশের নিচে এই ব্যবসা চালাচ্ছেন । যদিও তাদের ৪২ জনকে এখনো পর্যন্ত প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোন সেড দেওয়া হয়নি।  তবে আশা রাখছি প্রশাসন দ্রুত এই ৪২ জন ব্যবসায়ীকে সেড দেওয়ার ব্যবস্থা করবে। মালদা মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্সের সম্পাদক জয়ন্ত কুন্ডু জানিয়েছেন, নিয়ন্ত্রিত বাজারের দুটি ব্যবসায়ী সংগঠনের মধ্যে একটা জটিল পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। একটা ভুল বোঝাবুঝি থেকে সমস্যা হয়েছে । আমরা বিষয়টি জেনেছি । হঠাৎ করে সবজি আনাজপাতির ব্যবসা ধর্মঘট করলে সাধারণ মানুষকেই সমস্যায় পড়তে হবে।  তাই এ ব্যাপারে জেলাশাসক  কেউ বিষয়টি জানিয়েছি।  পাশাপাশি নিয়ন্ত্রিত বাজারের বড় ব্যবসায়ীরা যাতে ধর্মঘট তুলে নেন সে ব্যাপারে তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসা হবে। ইংরেজবাজার নিয়ন্ত্রিত বাজারের অফিসার ইন চার্জ লিয়াকত আলী জানিয়েছেন,  লরি পার্কিং জোন যেখানে রয়েছে সেখানকার কাজ শুরু হয়েছে । তাই ওই জায়গাগুলো খালি করার একটা প্রস্তুতি নিতে হচ্ছে।ৎ আমরা কোন ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে যাব না । তবে যারা ওই পার্কিং জোন এলাকায় আছে তাদের বিকল্প ব্যবস্থা  কিভাবে করা যায় সে ব্যাপারে ও জেলা প্রশাসনের উচ্চপদস্থ কর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে সমাধান মেটাবার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।