চাঁচল থানাপাড়া থেকে অড়বড়া যাওয়ার সাত কিলোমিটার রাস্তা সংষ্কারের দাবিতে,পথে বসে ধর্না

উজিরআলী, আজবাংলা চাঁচলঃ সাত কিলোমিটার রাস্তা সংষ্কারের দাবিতে, সোমবার চাঁচল-১ নং ব্লক মোড়ে ধর্নায় বসেন স্থানীয় বাসিন্দারা।সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ পর্যন্ত চলে ওই ধর্না। চারটা নাগাদ ওই রাস্তায় প্রয়োজনীয় সংস্কার করার আশ্বাসে পথ ধর্না প্রত্যাহার করেন বাসিন্দারা।প্রসঙ্গত, ভগবানপুর গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার অড়বড়া থেকে চাঁচল যাওয়ার জন্য চরম দুর্ভোগে পড়তে হয় বাসিন্দাদের। দুলিয়াবাড়ী,অড়বড়া,সুতাহাটি,আশ্রমপাড়া ও এলাকার ও কয়েকটি গ্রামের মানুষ অর্থাৎ হাজারো বাসিন্দা চাঁচলে আসতে গিয়ে দুর্ভোগে পড়তে হয়। এছাড়াও দৈনন্দিন যাত্রাকালীন পড়ুয়ারাও সঠিক সময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে পারে না বলে অভিযোগ।অ্যাম্বুলেন্সে হাসপাতালে আসতে গেলে ছোটো ডোবাকার পার হয়ে আসতে হয় যার ফলে রোগীরা ও কষ্টে জর্জরিত হয়। স্থানীয় বাসিন্দা বিকি তালুকদার বলেন, পথ বেহাল তার সাথে রাস্তার ধারে নেই পথবাতি। সন্ধ্যা হলেই চাঁচল শহর লগ্ন এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত হয়না! শূন্য হয়ে পড়ে পথ। বড়ো তো দুরের কথা,কোনো ক্ষুদ্র যানবাহন ও যাই না ওই রাস্তায়। প্রতিদিন পায়ে হেটেই ২-৩ কিলোমিটার যাত্রা করেন গ্রামীন পথ চারীরা বলে জানান বিপ্লব মন্ডল।তাদের অভিযোগ, বারে বারে সংশ্লিষ্ট ব্লক দফতরে আর্জি জানিয়েও কোনও সুরাহা হয়নি। এমনকী, মুমূর্ষু রোগী, পড়ুয়া এবং নিত্য আনাগোনা করা মানুষ চরম হেনস্থার মুখে পড়েন। অবিলম্বে ওই রাস্তা সংস্কারের দাবিতে তাই সোমবার সকাল দশটা থেকে আশেপাশের স্থানীয়রা চাঁচল-১ নং ব্লকমোড়ে ধর্নায় বসেন।স্থানীয় বাসিন্দা, জয়দেব দাস, প্রসেনজিৎ শর্মা, বিকি তালুকদার , প্রসেনজিৎ দাসদের অভিযোগ, বারে বারে জানিয়েও কোনও সুরাহা হয়নি। তাই এ দিন পথে বসে ধর্না কর্মসূচী নেওয়া হয়েছে। আন্দোলনকারীরা চারটে নাগাদ ব্লক আধিকারিকের কাছে শ্মারকলিপি জমা করেন। চাঁচল-১ নং ব্লক আধিকারিক সমীরন ভট্রাচার্য জানান, অবশ্য দ্রুত মেরামতির কাজ শুরু হবে। পরে বিকেল চারটে নাগাদ ধর্না কর্মসূচী প্রত্যাহার করেন বাসিন্দারা।