কুমিল্লা ১১ টি আসনে বিএনপি মনোনীত ৫ প্রার্থীসহ ৩৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল

Comilla, the nomination of 36 candidates, including
কুমিল্লা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীরের সম্মেলন কক্ষে

সাইফুল ইসলাম ফয়সাল:আজবাংলা কুমিল্লা          কুমিল্লার ১১টি আসনে বিএনপি মনোনীত ৫ প্রার্থীসহ ৩৬ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করা হয়েছে। রবিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কুমিল্লা জেলা রিটার্নিং অফিসার ও জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর যাচাই-বাছাই শেষে তাদের প্রার্থীতা বাতিল হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১০ জনের মনোনয়ন বাতিল হয়েছে কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর আসন থেকে। কুমিল্লার ১১টি আসনে ১শ ৩৪জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। বিএনপির ৫ প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হলেও প্রতিটি আসনে বিএনপি মনোনীত একাধিক প্রার্থী থাকায় প্রতি আসনেই বিএনপির প্রার্থী রয়েছে। বাছাইয়ে আওয়ামীলীগের মনোনীত সকল প্রার্থীর মনোনয়নপত্র সঠিক বলে গণ্য হয়েছে। কুমিল্লা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীরের সম্মেলন কক্ষে মনোনয়নপত্র যাছাই বাছাই হয়।
বিএনপি মনোনীত ৫জন প্রার্থীর মধ্যে উপজেলা চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ না করে মনোনয়নপত্র দাখিল করায় কুমিল্লা-৪ (দেবিদ্বার) আসনে মো: রুহুল আমিনের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। ঋণ খেলাপীর অভিযোগে কুমিল্লা-১০ (সদর দক্ষিণ, লালমাই ও নাঙ্গলকোট) আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মো: আবদুল গফুর ভূইয়ার মনোনয়পত্র বাতিল করা হয়। কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী অধ্যক্ষ মো: ইউনুসের সকল কাগজপত্র সঠিক থাকলেও তার কাগজপত্রের নোটারী যে আইনজীবী করেছেন সে আইনজীবী নোটারী করার রেজিষ্ট্রেশন মেয়াদোত্তীর্ণ এবং নবায়ন না করায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়। কুমিল্লা-৬ সদর আসনে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সৈয়দ গোলাম মহিউদ্দিন আয়কর রিটার্ন জমা না দেয়ায় তার মনোনয়নপত্রটি বাতিল করা হয়েছে। কুমিল্লা-৩ মুরাদনগর আসনেও আয়কর সনদ না দেয়ায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী কে এম মজিবুল হকের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়। যদিও কে এম মজিবুল হকের দাবি তিনি মনোনয়নপত্রের সাথে আয়কর সনদ জমা দিয়েছেন। কুমিল্লা জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মো: আবুল ফজল মীর জানান, আমাদের কাছে যেসব কাগজ জমা দেয়া আছে সেসব কাগজই আছে। আমরা কোন কাগজে হাত দেই নি। আর তিনি তো আপিল করতে পারবেন। মনোনয়নপত্র বাছাই শেষে কুমিল্লা-১ দাউদকান্দি মেঘনা আসনে ইসলামী ঐক্যজোটের মোঃ আলতাফ হোসাইন, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বাশির আহমেদ, জাতীয় পার্টির সৈয়দ মো. ইফতেখার আহসান, কুমিল্লা-২ হোমনা তিতাস আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ মনোনয়ার হোসেন, রবিউল ইসলাম, জাসদের প্রার্থী বরুয়া মনোজিত ধীমন, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোঃ আবদুল মজিদ, সারোয়ার হোসেন, কুমিল্লা- ৩ মুরাদনগর আসনে বিএনপির দলীয় প্রার্থী কাজী কেএম মুজিবুল হক, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জাহাঙ্গীর আলম সরকার, তার পুত্র আহসানুল আলম সরকার কিশোর, কাজী জুনউন বশরী, আকবর আমীন বাবুল, জাকপা’র আনিসুর রহমান, গোলাম কিবরিয়া, দেলোয়ার হোসেন, এনপিপি’র নজরুল ইসলাম বাংলাদেশ মুসলীম লীগের সৈয়দ মোস্তাক আহম্মেদ, কুমিল্লা-৪ দেবীদ্বার আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী রেজভিউল আহসান, আবুল কালাম আজাদ, বিএনপির প্রার্থী রুহুল আমিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী ইরফানুল হক সরকার, মোঃ মাহবুবুল আলম,
কুমিল্লা-৫ বুড়িচং ব্রাহ্মণপাড়া আসনে বিএনপির প্রার্থী অধ্যক্ষ মোঃ ইউনুস, ইসলামী ঐক্যজোটের প্রার্থী মোঃ শাহআলম, স্বতন্ত্র প্রার্থী আবুল কালাম ইদ্রিস, গণফোরামের প্রার্থী শেখ আবদুল বাতেন,
কুমিল্লা-৬ সদর আসনে বিএনপির প্রার্থী সৈয়দ গোলাম মহিউদ্দিন,
কুমিল্লা-৮ বরুড়া আসনে স্বতন্ত্র কায়সার আলম সেলিম,
কুমিল্লা-৯ লাকসাম মনোহরগঞ্জ আসনে স্বতন্ত্র মোঃ ইসমাইল, ফয়েজুল্লাহ, এএফএম সোলায়মান চৌধুরী,
কুমিল্লা-১০ নাঙ্গলকোট লালমাই আসনে বিএনপির আবদুল গফুর ভূইয়া, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের আবুল কালাম আজাদ, স্বতন্ত্র মোঃ রুহুল আমিন চৌধুরী,
কুমিল্লা-১১ চৌদ্দগ্রাম আসনে জাকের পার্টির মোঃ তাজুল ইসলাম বাবুলের মনোনয়ন বাতিল করা হয়।