রোগী ও রোগীর আত্মীয়কে মারধরের অভিযোগ , এক ক্লিনিকের বিরুদ্ধে

Complaint of beating patient
ইংরেজবাজার
 Complaint of beating patient
ইংরেজবাজার

আজবাংলা ইংরেজবাজার : চিকিৎসার নামে টাকা লুটের দোকান চলছিলো ভালোই,তবে বিপত্তি হয়ে দাঁড়ালো চিকিৎসা করাতে আসা রুগীর পরিবারকে মারধর করা।পালাতেও হলো,সাথে তালাও ঝুললো দোকানে।রোগী ও রোগীর আত্মীয়কে মারধরের অভিযোগ উঠলো মালদা শহরের ৩ নম্বর গভঃ কলোনী এলাকায় অবস্থিত এক ক্লিনিকের বিরুদ্ধে।ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগেই সব ছেড়ে ছুড়ে পালালো ক্লিনিকের কর্মী সহ চিকিৎসকেরা।পুলিশ অবশেষে ক্লিনিকে ঝোলালো তালা।ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। জানাগেছে,মালদার রতুয়া থানার চাঁদমুনি গ্রামের বাসিন্দা সফিকুল শেখ।স্ত্রী চেনতারা বিবিকে শাররীক অসুস্থ থাকায় শুক্রবার সকালে মালদা শহরে আসেন ওই দম্পত্তি। প্রথমে মালদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে গিয়ে পৌঁছান তারা।তারপরই শুরু কান্ড, এই প্রসঙ্গে চেনতারা বিবি বলেন, হাসপাতালের আউটডোরের লাইনে যখন দাঁড়িয়েছিলেন তখন এক রিকশাচালক কাছে এসে ভালো ক্লিনিক, ভালো চিকিৎসক,কম খরচে ভালো চিকিৎসার কথা বলে।খরচ পড়বে ৩০০ টাকা। সেকথা শুনে তাঁরা ওই রিকশাচালকের সঙ্গে ক্লিনিকে আসেন।এক চিকিৎসক চেনতারা বিবিকে পরীক্ষা করেন।এরপর তাঁদের একটি ঘরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নাকি তাঁর রক্ত পরীক্ষা করা হবে।আর তার জন্য খরচ পড়বে ১২০০ টাকা। যদিও ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ কোনও রিসিপ্ট দেবে না বলে জানিয়ে দেয়। কিন্তু এতো টাকা না থাকার কারণে স্বামী বাইরে থেকে রক্ত পরীক্ষা করাবেন বলে চিকিৎসককে। এই কথা শুনেই ক্লিনিকের এক কর্মী তাঁর শওহরকে অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করতে শুরু করে। তাঁর গালে চড় মারে। এমনকি অসুস্থ মহিলাকেও ঘরের দরজা বন্ধ করে চড় মারতে উদ্যত হয়।চিৎকার চেঁচামেচিতে ছুটে আসেন স্থানীয়রা।এর পরই বেগতিক পরিস্থিতির টের পেয়ে চিকিৎসক ও ক্লিনিকের কর্মীরা সবাই পালিয়ে যায়। ঘটনা জানতে পেরে ঘটনাস্থানে আসেন স্থানীয় কাউন্সিলর শিপ্রা রায়। তিনিই ইংরেজবাজার থানায় খবর দেন। তিনি বলেন, “গত দেড় বছর ধরে এই ক্লিনিকটি চলছে।আজ আমরা হাতেনাতে ধরেছি।এই ক্লিনিকের সব ডাক্তার ভুয়ো।নানান ভুয়ো ডিগ্রি দেখিয়ে গ্রামের অসহায় দরিদ্রদের লুট চলছিলো এই ক্লিনিকে।এমনকি কোনও রেজিস্ট্রেশনও নাকি নেই এর ক্লিনিকের।এক শ্রেণীর রিক্সা চালক এই দালাল চক্রের সঙ্গে যুক্ত।তাঁরাই রোগীদের ফাঁদ ফেলে এই ক্লিনিকে নিয়ে আসে কমিশনের লোভে”। এদিকে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখেন একজন মহিলা কর্মী রয়েছে,বাকি সকলেই পলাতক।পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুটি মোটরবাইক বাজেয়াপ্ত করেছে এবং ক্লিনিকে তালা ঝুলিয়ে দেয়।ঘটনার তদন্ত শুরু হলেও এই ঘটনায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের হয়নি।