ডায়মন্ডহারবার হাসপাতালের নার্সদের কাঁদিয়ে ছোট্ট রূপসা নতুন ঠিকানার সন্ধানে

আজবাংলা ডায়মন্ডহারবার কন্যাসন্তান হওয়াই প্রসবের পরেই দুধের শিশুকে ডায়মন্ডহারবার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ফেলে রেখে গিয়েছিল মা-বাবা আর পরিজনেরা। তারপর কেটে গেছে দু'শো ঊনিশটা দিন। স্নেহ, মায়া আর মমতায় এ ক'দিন হাসপাতালেই কেটেছে ছোট্ট রূপসার। এ ক'দিনেই সে বড় আপনজন হয়ে উঠেছিল ওঁদের সকলের। শুক্রবার সেই রূপসাই তাঁদের সকলকে কাঁদিয়ে বিদায় নিল হাসপাতাল থেকে। সরকারি আধিকারিকের কোলে চেপে চলল নতুন ঠিকানায়, নতুন আশ্রয়ের খোঁজে। শুক্রবার সকাল থেকেই তোড়জোড় চলছিল রূপসাকে হোমে পাঠানোর। রূপসাকে নিয়ে যেতে হাসপাতালে তখন হাজির সরকারি আধিকারিক, পুলিশ প্রশাসন, চাইল্ড লাইনের কর্মীরা। সুন্দর করে ওকে সাজিয়ে দিলেন নার্স আর কর্মীরা। কোলে নিয়ে চলল শেষবারের মত আদরের পর্বও। এক আশ্রয় ছেড়ে যে অন্য আশ্রয়ে চলে যেতে হচ্ছে তা বোধহয় বুঝেছিল রূপসাও। শুরু করে দেয় কান্নাকাটি। এক এক করে যারই কোলে চড়ে, তার হাতের আঙুলগুলো আঁকড়ে ধরে সে। যেন বলতে চায়, 'তোমাদের ছেড়ে যাব না আমি।'সরকারি নির্দেশটা এসেছিল বৃহস্পতিবারই। সরকারি নিয়ম মেনে রূপসাকে পাঠাতে হবে কোনও সরকারি হোমে। সেই নির্দেশ হাতে পেয়েই মনখারাপ ডাক্তার, নার্স আর কর্মীদের। ২১৯টা দিন। নেহাতই কম সময়। তবু এর মধ্যেই তো রূপসাকে বড় আপন করে নিয়েছিলেন ওঁরা সবাই। আদর করে নাম রেখেছিলেন রূপসা। ঘটা করে হাসপাতালেই দেওয়া হয়েছে মুখেভাত। কত উপহার দেওয়া হয়েছে তাকে। কখনও ডাক্তারবাবু আবার কখনও নার্স বা অন্য কর্মীদের কোলে চড়ে ঘুরে বেড়িয়েছে সে। সময় মেনে গা স্পঞ্জ করে দেওয়া, খাওয়াদাওয়া, ওষুধ খাওয়ানো কত পরিচর্যাই না হয়েছে ওর। এককথায় ডাক্তার, নার্স আর কর্মীদের পরম আদরে এসএনসিইউতেই বেড়ে উঠছিল ছোট্ট রূপসা তাই হঠাত্‍ই ছন্দপতন হল ডায়মন্ডহারবার মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ।রূপসাকে নিয়ে আপাতত রাখা হয়েছে গড়িয়ায় আধা সরকারি একটি হোমে। আগামী সোমবার তাকে চাইল্ড ওয়েলফেয়ার কমিটির হাতে তুলে দেওয়া হবে। শিশুটির বাবা-মায়ের যে ফোন নম্বর রয়েছে তার মাধ্যমে তাঁদের ডেকে কাউন্সেলিং করার পরও যদি তাঁরা শিশুটির দায়িত্ব নিতে রাজি না হন তখন কাগজে বিজ্ঞাপন দিয়ে রূপসার দায়িত্ব নেওয়ার আবেদন জানানো হবে সরকারি তরফে। যেসব দম্পতি অনলাইনে সে আবেদনে সাড়া দেবেন তাঁদের পরিবার সম্পর্কে আগাগোড়া যাচাই করে তবেই কোনও এক দম্পতির হাতে কন্যাস্নেহে পালন করার জন্য সরকারিভাবে তুলে দেওয়া হবে রূপসাকে। না হলে সরকারি হোমই হবে ছোট্ট রূপসার ভবিষ্যত্‍ ঠিকানা।