দীপিকার ছপাককে টেক্কা দিয়ে প্রেক্ষাগৃহে রমরমিয়ে চলছে অজয়ের তানহাজি

আজবাংলা  একদিকে অজয়-কাজলের কামব্যাক ছবি ‘তানাজি’, অন্যদিকে ‘বিতর্কিত’ ছবি মেঘনা গুলজার পরিচালিত, দীপিকা পাড়ুকোন অভিনীত ‘ছপাক’...মঙ্গলবার সন্ধ্যের আগে অবধি যদিও ‘ছপাক’-এর আগে বিতর্ক শব্দটি জুড়ে বসেনি। মঙ্গলবার আচমকাই দীপিকার জেএনইউ যাওয়া এবং ঐশীর সঙ্গে একই মঞ্চে দাঁড়িয়ে পড়ুয়াদের ‘পাশে আছি’ বার্তা...চিত্রটা বদলে দিয়েছিল রাতারাতি। তারপরের ঘটনাটা সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে মোটামুটি সকলেরই জানা। #বয়কট দীপিকা এবং #বয়কট ছপাক-এ তখন ফেসবুক, টুইটারের দেয়াল ছয়লাপ। পাল্টা ট্রেন্ড ওঠে #আইসাপোর্টদীপিকা। সিনেমায় রাজনীতির রং লাগতেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছিল দীপিকা অনুরাগীদের মনে। প্রশ্ন উঠছিল, তবে কি বক্স অফিসে এর খেসারত দিতে হবে দীপিকাকে? ঠিক তাই হল।মুক্তি পাওয়ার প্রথম দিন শুক্রবার ছবিটি আয় করেছিল ১৫.১০ কোটি টাকা। শনিবার ২০.৫৭ কোটি টাকা এবং রবিবার পর্যন্ত সব মিলিয়ে ৬১.৯৩ কোটি টাকা আয় করেছে। শুধুমাত্র বাণিজ্য নগরী মুম্বইতে ছবিটি আয় করেছে ২৭ কোটি টাকা। অন্যদিকে দিল্লিতে আয় করেছে ৯ কোটি টাকা। চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞদের মতে ছবিটি খুব শীঘ্রই ১০০ কোটির ক্লাবে প্রবেশ করবে।     ছত্রপতি শিবাজির বীর সৈনিক, সুবেদার তানাজি মলুসারে। শিবাজি মহারাজের ডান হাত বললেও চলে। মারাঠা সামরাজ্যের জয় গাঁথা। বিশেষ করে শিবাজির গুণগান রয়েছে ছবিতে। বার বার উঠে আসে স্বরাজের প্রসঙ্গ। যেটা দেশাত্মবোধকে ঘা দেয়। মুঘল সাম্রাজ্যের হাত থেকে কোন্ধানা কেল্লা ছিনিয়ে নেয় মারাঠা সৈন্যরা। তাঁদের নেতৃত্ব দেন তানাজি। মারাঠারা দেশের জন্য প্রাণ দিতে পারে। মুঘল বহিরাগত। মারাঠার শত্রু মুঘল। ভাল জয় মন্দের পরাজয়।