রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘকে বুঝতে হলে ডাঃ হেডগেওয়ারকে বুঝতে হবে।মোহন ভাগবত

Dr. Keshav Hedgewar
ডাঃ হেডগেওয়ার

আজবাংলা  সোমবার দিল্লির বিজ্ঞান ভবনে অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের ‘ভবিষ্যত ভারত : আরএসএস-এর দৃষ্টিভঙ্গী’ অনুষ্ঠানেয বক্তব রাখতে গিয়ে  সঙ্ঘচালক মোহন ভাগবত বললেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘকে বুঝতে হলে ডাঃ হেডগেওয়ারকে বুঝতে হবে। সঙ্ঘের কাজ হচ্ছে অনন্য। তাই সঙ্ঘ অতুলনীয়। সঙ্ঘের কার্যকর্তারা প্রচারের মধ্যে নিজেদের রাখেন না। কিন্তু সঙ্ঘের কাজের বিষয়ে সাধারণ মানুষকে অবগত করার উদ্দেশ্যে তারা এগিয়ে চলে। সঙ্ঘের বিষয়ে চর্চা হোক। কিন্তু সমস্ত কিছু জানলে তো চর্চাটা আরও বেশি ভাল হয়। কেউ আবার সঙ্ঘের শক্তিকে ভয় পায়। আমি আমার তরফ থেকে যা তথ্য দেওয়ার তা দেবো। আপনাদের অধিকার রয়েছে গবেষণাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার। সঙ্ঘ বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্যকে খুঁজে চলেছে। কিছু মানুষ এমনও রয়েছেন যারা বৈচিত্রের মধ্যে বিদ্বেষ তৈরি করে সমাজে হিংসা বাড়ায়। সঙ্ঘ অনেক বড় তাই আমাদের উদ্দেশ্য মানুষের মনের মধ্যে থাকা আশঙ্কাগুলিকে দূর করা।

এই ধরনের আরো খবর জানতে আমাদের ফেসবুক পাতায় লাইক করুন

 

 

দেশে ও বিদেশ থেকে আগত বহু বুদ্ধিজীবী এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। রাজনীতি, শিক্ষাক্ষেত্র, সংস্কৃতি, বিচারব্যবস্থা, প্রশাসনিক ক্ষেত্রের দিকপালেরা এদিনের অনুষ্ঠানে যোগ দেয়। উপস্থিত ছিলেন মনীষা কৈরালা, ভাগ্যশ্রী, অনিল কাপুর, গজেন্দ্র চৌহান, রবি কিষণ, অনু কাপুর।  রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘকে অনায়াসে ভারতের সবচেয়ে বিখ্যাত প্রতিষ্ঠানগুলির অন্যতম বলা চলে। আশ্চর্য, বাইরে থেকে কিন্তু এর বিষয়ে বেশি কিছু জানার উপায় নেই। মোটের উপর যেটুকু জানা আছে, গোঁড়া হিন্দু রক্ষণশীল সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান আরএসএস হল সঙ্ঘ পরিবারের অংশ। সঙ্ঘের পাশাপাশি সঙ্ঘ পরিবারে ভারতীয় জনতা পার্টি, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, বজরং দল ইত্যাদিরা রয়েছে, সেটা আমাদের জানা। যেটা তুলনায় অজানা, তা হল কত ধরনের ছোট ছোট সামাজিক ও সাংস্কৃতিক গোষ্ঠী, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও এই পরিবারের অংশ। সঙ্ঘের প্রত্যক্ষ সদস্য না হলেও এদের ব্যবহার করেই সঙ্ঘের আদর্শ ও বার্তা ছড়িয়ে দেওয়ার কাজটা ঘটে। সেবা ভারতী, বিদ্যা ভারতী, বন্দে মাতরম, কথামণ্ডল, বনবাসী কল্যাণ মণ্ডল, দেশ জুড়ে এই সব নানা ছোটখাটো পরিবার-বন্ধুরা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে। অধিকাংশেরই নাম হিন্দু দেবদেবীর অনুসরণে, যাতে হিন্দুত্বের সংযোগটা স্পষ্ট হয়।  দেশকে সেবার করার উদ্দেশ্যে ডঃ হেডগেওয়া এই সঙ্ঘের ভিত্তি স্থাপন করেন।এদিন মোহন ভাগবত ছাড়াও মঞ্চে ছিলেন উত্তরাঞ্চলের সঙ্ঘচালক বজরঙ্গি লাল, দিল্লি প্রান্তের সঙ্ঘচালক কুলভূষণ