নদিয়ায় স্কুলে চলাকালীন দুই ছাত্রীকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে

আজবাংলা কৃষ্ণনগর নদিয়ার নাকাশিপাড়ার শিবপুর জনকল্যাণ সংঘ হাই স্কুলের ছাত্রী শিল্পা বিশ্বাস ও বর্ষা মণ্ডল। শিল্পা নবম শ্রেণিতে পড়ে, আর বর্ষা দ্বাদশ শ্রেণিতে। রোজকার মতোই সোমবার স্কুলে গিয়েছিল দু'জনেই। পরিবারের লোকেদের দাবি, দুপুরে যখন ক্লাস চলছে, তখন স্কুলে আসেন পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে নেতা অমিত বিশ্বাস স্কুলের দুই ছাত্রী শিল্পা ও বর্ষাকে জলের পাইপ দিয়ে বেধড়ক মারধর করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় তাদের প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় বেথুয়াডহরি হাসপাতালে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে শিল্পাকে পরে স্থানান্তরিত করা হয় শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে। ঘটনার প্রতিবাদে বিকেলে স্কুলের সামনে জমায়েত হয়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন অভিভাবক ও স্থানীয় বাসিন্দারা। ঘেরাও করে রাখা হয় প্রধান শিক্ষক-সহ স্কুলের অন্যান্য শিক্ষকদের। গ্রামবাসীদের দাবি, এর আগেও স্কুলে গিয়ে ছাত্রীদের মারধর করেছেন শিবপুর জনকল্যাণ সংঘ হাইস্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে নেতা অমিত বিশ্বাস। খবর পেয়ে রাতে স্কুলে যায় নাকাশিপাড়া থানার পুলিশ। পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন গ্রামবাসীরা। ঘটনায় তুমুল উত্তেজনা ছড়াল নদিয়ার নাকাশিপাড়ায়। ঘটনার পর থেকে বেপাত্তা অভিযুক্ত শিবপুর জনকল্যাণ সংঘ হাইস্কুলের পরিচালন সমিতির সভাপতি তথা তৃণমূল কংগ্রেসের দাপুটে নেতা অমিত বিশ্বাস।