রহস্যে মোড়া বিজলি বাবার মন্দির, প্রতি ১২ বছরে ঘটে এক আশ্চর্য ঘটনা

রহস্যে মোড়া বিজলি বাবার মন্দির, প্রতি ১২ বছরে ঘটে এক আশ্চর্য ঘটনা
আজবাংলা         হিমাচল প্রদেশ জুড়ে রয়েছে নানা রহস্যে মোড়া দেবদেবীর মন্দির | তার মধ্যেই রয়েছে বিজলি বাবার মন্দির | এই মন্দিরকে ঘিরে রয়েছে নানা রহস্য | যা শুনলে আপনারা অনেকেই অবাক হবেন | অথবা কারুর মনে প্রশ্ন জগতে পাড়ে সত্যিই কি এই রকম ঘটনা ঘটে থাকে বিজলি বাবার এই মন্দিরে? হিমাচল প্রদেশে বিজলি বাবার এই মন্দিরে প্রতি ১২ বছরে একবার ভয়ঙ্কর বজ্রপাত হয় | এই মন্দির অবস্থিত আছে কুলুর ব্যাস ও পার্বতী নদীর সঙ্গমস্থলে | আপনারা জানলে অবাক হয়ে যাবেন যে বজ্রপাতের সময় এই মন্দিরের শিবলিঙ্গ দুভাগ হয়ে যায় | সেই সময় পূজারি শিবলিঙ্গের ক্ষতে শুধু মাখনের প্রলেপ দেন | তিনি মহাদেবের ক্ষত সারিয়ে তোলার জন্য দিনে কয়েকবার শিবলিঙ্গে মাখনের প্রলেপ লাগিয়ে দেন | পুরাণে আছে, এই অঞ্চলে একটা সময় কুলান্ত নামে এক দৈত্য থাকত | সেই দৈত্য রূপ ধরতে পারত সাপের | মথান গ্রামের কাছে ব্যাস নদীতে একদিন কুলান্ত নামের ওই দৈত্য বিরাটাকার অজগর সাপের রূপ ধরে কুণ্ডলি পাকিয়ে বসে ছিল | তারফলে নদীর জলস্রোত বাধা পাচ্ছিল | তাঁর কিছুক্ষুণের মধ্যেই ওই অঞ্চলে নদীর জল বাড়তে থাকে | ওই দৈত্য চেয়েছিল গ্রামের সমস্ত মানুষকে জলে ডুবিয়ে মারতে | তাঁর কাজে ক্ষুব্দ হন স্বয়ং মহাদেব | তখনই মহাদেব এসে দাঁড়ান ওই দৈত্যের সামনে | কুলান্তকে মহাদেব বলেন, তোমার লেজে আগুন ধরেছে | ঠিক ওই মুহূর্তেই ওই দৈত্য পিছন ফিরতে মহাদেব তাঁর ত্রিশুল নিয়ে দৈত্যকে বধ করেন | কথিত আছে, কুলান্তকে বধ করার পর মহাদেব দেবরাজ ইন্দ্রের কাছে প্রতি ১২ বছর পর ওখানে বজ্রপাত ঘটানোর আবেদন করেন | যাতে ওই অঞ্চলে মানুষের কোনও ক্ষতি না হয় | সেই রীতি অনুযায়ীই প্রতি ১২ বছরে একবার করে মন্দিরের উপরই বজ্রপাত হয় |