রাজ্যের গরিব কৃষকদের জন্য বরাদ্দ পাওয়ার টিলার বিক্রি হচ্ছে বাঁকা পথে ।

farmers in the state is being sold on a curved road.
পাওয়ার টিলার

প্রমোথেশ ঘোষ  আজবাংলা ধর্মনগর  রাজ্যের গরিব কৃষকদের জন্য বরাদ্দ পাওয়ার টিলার বাঁকা পথে বিক্রি করা হচ্ছে ৷যে পাওয়ার টিলার ৯৮ হাজার টাকায় কৃষকদের মেলার কথা তা প্রায় দেড় লক্ষ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ৷ রাজ্যের হটিকালচার কর্পোরেশনের এমনই এক চাঞ্চল্যকর ঘটনা সামনে উঠে এসেছে ৷বৃহস্পতিবার রাতে মহকুমার নয়াপাড়ার কালভার্ট এর সামনে গাড়ি করে নিয়ে যাওয়া একটি পাওয়ার টিলার স্থানীয় লোকজনসহ পুলিশ আটক করায় বিষয়টি সামনে উঠে এসেছে ৷ওই সময় মাঝ রাতে আটক হয় বিচিত্র চাষা ও প্রহর মল্লিক নামের দুজন কৃষক৷ জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায় আগরতলা অরুন্ধতী নগরের ত্রিপুরা হটিকালচার কর্পোরেশন লিমিটেডের অফিস থেকে ১ লক্ষ ৪০ হাজার টাকায় একটি পাওয়ার টিলার কিনেছে তারা৷ কিন্তু দেখা যায়, এই পাওয়ার টিলা কেনা হয়েছে অন্য আরেকজনের নামে৷ তার নাম বিরাজ চ্যাটার্জি৷চালানে পাওয়ার টিলারের দাম ৯৭ হাজার ৮০০ টাকা ৷অর্থাৎ প্রায় ৪২ হাজার ৮০০ টাকা বেশি টাকা দিয়ে কৃষক বিচিত্র চাষা ও প্রহর মল্লিক পাওয়ার টিলারটি কিনেছে৷ অভিযোগ বিরাজ চাটার্জী যিনি কোন বেনি ফিসারি নন – যিনি কোন কৃষকও নন তিনি কি করে পাওয়ার টিলার কিনতে পারেন ?এবং কেন ৪২ হাজার টাকা বেশি মূল্য দিয়ে এই পাওয়ার টিলার কেনা হল ?এ নিয়ে প্রশ্ন তোলেন লোকজন ৷এই প্রশ্নের উত্তরে অবশ্য আটক ২ কৃষক কোন সদুত্তর দিতে পারেননি৷ লোকজন এবং পুলিশের সামনে কথা বলার সময় তাদের অস্পষ্টতা তথা জড়তা৷
ঘটনাটির পরিপেক্ষিতে ধর্মনগর থানার পুলিশ ২ চাষী সহ মোট চারজনকে আটক করে রাতেই থানায় নিয়ে আসে ৷পুলিশ জানিয়েছে পাওয়ার টিলার কেনার ক্ষেত্রে দুর্নীতির গন্ধ রয়েছে৷ তবে সেটা তদন্ত সাপেক্ষ৷
এ ঘটনায় ফের ত্রিপুরা হর্টিকালচার কর্পোরেশন লিমিটেড নামক গুরুত্বপূর্ণ বিভাগটির অপকর্মের বিষয়টি সামনে উঠে এলো ৷অভিযোগ প্রকৃত চাষীদের পেটে লাথি মারছে সংশ্লিষ্ট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্তরা ৷ এক্ষেত্রে জড়িত দপ্তরের একটি বড়সর চক্র ৷এই চক্র বামফ্রন্ট শাসন আমল থেকেই চাষীদের শোষণ করে আসছিল৷ এবং সেটা এখনও বজায় রয়েছে ৷ গোটা রাজ্যে বেশ সুবিস্তৃত এই চক্র৷ প্রত্যেকটি মহকুমায় রয়েছে তাদের দালাল৷ তাদের কাজ গরিব চাষিদের ঠকানো৷ এই কাজ মানিক সরকারের বাম আমল থেকেই শুরু হয়েছিল এবং এগিয়ে যাচ্ছিল৷যে পাওয়ার টিলার প্রায় ৯৮ হাজার টাকায় চাষীদের জমিতে পৌঁছার কথা- যেখানে সরকারের তরফে ৭৫ হাজার টাকা ভর্তুকি চাষিদের দেওয়ার কথা সে জায়গায় ত্রিপুরা হর্টিকালচার কর্পোরেশন লিমিটেড এবং সরকারের বিভাগীয় দপ্তর এর কিছু দালাল তথা অফিসার পাওয়ার টিলার স্বইচ্ছায় বেআইনিভাবে বিক্রি করছে এবং কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে ৷সূত্রে খবর এই দালাল চক্রের কারণে রাজ্যের কৃষি বিপ্লব সম্ভব হয়ে ওঠেনি৷ এদের যোগসাজশের কারণেই বাংলাদেশে প্রায় আড়াই লক্ষ টাকায় এক একটি পাওয়ার টিলার বিক্রি হচ্ছে ৷এ ব্যাপারে যদি রাজ্যের বিভাগীয় দফতর কোন কার্যকরী ব্যবস্থা নিতো তাহলে গোটা ব্যাপারটাই সামনে উঠে আসতো৷