নৌকোডুবির পর সমুদ্রে কয়েক ঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস লড়াই করে কোনওক্রমে প্রাণে বাঁচলেন ৩ মৎস্যজীবী

৩ মৎস্যজীবী
৩ মৎস্যজীবী

আজবাংলা পূর্ব মোদিনীপুর মঙ্গলবার ভোরে শঙ্করপুর থেকে যন্ত্রচালিত বোটে চেপে সমুদ্রে মাছ ধরতে গিয়েছিলেন পূর্ব মোদিনীপুরের ৫ মত্সজীবী। দুর্ভাগ্যক্রমে শঙ্করপুর থেকে ১০ নটিক্যাল মাইল দূরে ওই ৫ মত্সজীবীর বোটটি খারাপ হয়ে যায়। শুধু তাই নয়, ঢেউয়ের তোড়ে তাতে ফুটো হয়ে ডুবেও যায়। তখন সন্ধে সাতটা হবে। তার পর থেকেই বাঁচার চেষ্টায় লড়াই শুরু হয় ৩ মত্সজীবীর। অন্য ২ জন বেগতিক দেখে আগেই পালিয়ে যান।বোট হারিয়ে তেলের খালি ব্যারেল ও বাঁশ আঁকড়ে ধরে তারা ভাসতে থাকেন সমুদ্রে। জুলাই মাসে বঙ্গপোসাগরে মাছ ধরতে গিয়ে মাঝ সমুদ্রে উল্টে গিয়েছিল ট্রলার। ৫ দিন ভেসে থাকার পর জীবনযুদ্ধে জিতে বাড়ি ফিরেছিলেন দক্ষিণ ২৪ পরগনার মত্সজীবী রবীন্দ্রনাথ দাস। খাবার, জল এমনকি লাইফ জ্যাকেট ছাড়াই ৫ দিন সমু্দ্রে বেঁচেছিলেন তিনি। শেষপর্যন্ত ওই ৫ মত্সজীবীদের মধ্যে ৩ জন রবিবার রাতে এসে ওঠেন দীঘার ক্ষণিকা ঘাটে। তাদের উদ্ধার করে দীঘা থানার পুলিস। এরা হলেন শুকদেব মাঝি, বাড়ি চিংড়া ভূপতিনগর, বিকাশ দাস ও নন্দকুমার নন্দ। শেষ দুজনেই বাড়ি উত্তর ডিহিবাড়। সোমবার অন্য ২ মত্সজীবী গৌতম বর্মন ও স্বদেশ ওয়ারলেসের মাধ্যমে পুলিসকে তাদের বেঁচে থাকার খবর জানান।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!