অত্যন্ত হতাশাজনক ফলের জন্য দার্জিলিং জেলা সভাপতির পদ থেকে সরানো হল গৌতম দেবকে

আজবাংলা শিলিগুড়ি এবারের লোকসভা ভোটে উত্তরবঙ্গে অত্যন্ত হতাশাজনক ফলাফল হয়েছে রাজ্যের শাসকদলের।গেরুয়া ঝড়ে কার্যত ধুলিসাত্‍ হয়ে গিয়েছে ঘাসফুল শিবির। তা থেকে শিক্ষা নিয়ে একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে উত্তরবঙ্গের নিজেদের ক্ষমতা ফিরিয়ে আনতে বদ্ধপরিকর তৃণমূল। ১৫ বছর ধরে দার্জিলিং জেলায় দলের সভাপতির দায়িত্বে থাকা গৌতম দেবকে সরিয়ে আনা হয়েছে আট মাসের জন্য দায়িত্ব সামলানো রঞ্জন সরকারকে। তৃণমূল সূত্রে খবর গৌতম দেব দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের দার্জিলিং জেলার সভাপতি ছিলেন। তিনি রাজ্যের মন্ত্রীও। মূলত, তাঁর রিপোর্টের ভিত্তিতে এদিন শিলিগুড়িতে রাজ্যপালের অনুষ্ঠান বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তৃণমূল কংগ্রেস এবং রাজ্য প্রশাসন। গোটা ঘটনায় গৌতমবাবুর ভূমিকা সন্তোষজনক না-হওয়ার জন্যই তাঁকে জেলা সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। জেলা সভাপতির পাশাপাশি শিলিগুড়ি বিধানসভার আহ্বায়কের দায়িত্বও রঞ্জন সরকারের উপরেই ন্যস্ত করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতেই শিলিগুড়িতে পূর্ত দপ্তরের বাংলোয় উত্তরবঙ্গে দলের পর্যবেক্ষক অরূপ বিশ্বাস গৌতম দেব কে সঙ্গে নিয়ে এই সিদ্ধান্তের কথা ঘোষণা করেন। নতুন জেলা সভাপতিকে মাথায় রেখে দ্রুত জেলা কমিটি ও কোর কমিটি ঘোষণা করা হবে।পাশাপাশি, শিলিগুড়ি মহকুমার তিনটি আলাদা আহ্বায়ক নিয়োগ করা হলো দলের তরফে। শিলিগুড়ি বিধানসভার আহ্বায়ক হচ্ছেন রঞ্জন সরকারই। পাশাপাশি মাটিগাড়া-নকশালবাড়ির আহ্বায়ক করা হচ্ছে শিলিগুড়ি মহকুমা পরিষদের বিরোধী দলনেতা কাজল ঘোষকে। ফাঁসিদেওয়া বিধানসভার আহ্বায়ক হলেন প্রবীর রায়।