শ্যালিকাকে একা পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা জামাইবাবুর। শ্যালিকাকে ছেড়ে শাশুড়ির উপর চড়াও

ধর্ষণের চেষ্টা করে জামাইবাবু
ধর্ষণের চেষ্টা করে জামাইবাবু

আজবাংলা    দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ের আদলা গ্রামে একলা ঘরে শ্যালিকাকে পেয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে জামাইবাবু। হঠাত্‍ই শাশুড়ি এসে পড়ায় বিপত্তি।প্রৌঢ়া শাশুড়িকে বাঁশ দিয়ে বেধড়ক পেটালো জামাই। শুধু পেটানোই নয়, তাঁর গায়ে কেরোসিন তেল ঢেলে পুড়িয়ে মারার চেষ্টা করে সে। রবিবার  সন্ধা নাগাদ  ক্যানিংয়ের  আদলা গ্রামের বাড়িতে একাই ছিলেন তরুণী। সেই সুযোগে ঘরে ঢুকে পড়ে তরুণীর জামাইবাবু আতিয়ার সর্দার।  প্রথমে শ্যালিকার সঙ্গে গল্প করে। এরপর নানা অছিলায় গায়ে হাত দিতে শুরু করে। অভিযোগ, আতিয়ার তাঁকে টেনে বিছানায় ফেলে ধর্ষণ করার চেষ্টা করে।  তরুণীর চিত্‍কারে ছুটে যান তাঁর মা। তারপর? কিন্তু জামাইবাবুর শারীরিক শক্তির কাছে পেরে ওঠেনি। তাঁকে টেনে বিছানায় ফেলে দিতেই আর্ত চিত্‍কার করে ওঠেন তরুণী। তা শুনেই ছুটে আসেন বৃদ্ধা মা। কু-কাজ করতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পড়ে রুদ্রমূর্তি ধারণ করে গুণধর জামাই। বেগতিক বুঝে শ্যালিকাকে ছেড়ে শাশুড়ির উপর চড়াও হয় সে। বাঁশ দিয়ে বেধড়ক পেটানোর পর কেরোসিন তেল ঢেলে গায়ে আগুন লাগানোর চেষ্টাও করে। রক্তাক্ত অবস্থায় প্রৌঢ়াকে ভর্তি করা হয় ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে। তাঁর অবস্থা আশঙ্কাজনক। পুলিশ এই ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে। অভিযুক্ত আতিয়ার সর্দারের খোঁজে পুলিশ।