তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ ,দুই গোষ্ঠীর মধ্যে গুলির লড়ায়ে প্রাণ গেলো গ্রামের নিরীহ যুবকের

Group clash
তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ
 Group clash
তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ

আজবাংলা মালদা : পঞ্চায়েত নির্বাচনের প্রার্থী নিয়ে তৃণমূলের গোষ্ঠী সংঘর্ষ।প্রার্থী নিয়ে দলীয় কর্মীদের মধ্যেই মতো বিরোধ,দুই গোষ্ঠীর মধ্যে গুলির লড়াই।আর এই লড়াইয়ে প্রাণ গেলো গ্রামের নিরীহ যুবকের।ঘটনাস্থল মালদা।মাথায় গুলিবিদ্ধ অবস্থা কলকাতা নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হলো ওই যুবকের। ঘটনাটি ঘটেছে মালদার কালিয়াচক থানার মোসমপুর অঞ্চলের জলাপাড়া এলাকায়।ঘটনার পর থেকেই উত্তপ্ত এলাকায় টহলদারি চালাচ্ছে পুলিশ।ইতিমধ্যে পুলিশ দুই জনকে গ্রেফতার করেছে। জানাগেছে,মৃত যুবকের নাম নিজারুল রহমান(২৫)।পেশায় লেবার।বাবা আব্দুল হায়াৎ।মা রোজিনা বিবি।মা বাবার তিন পুত্র ও এক কন্যা সন্তানের মধ্যে বড় ছেলে ছিল নিজারুল।জলাপাড়া গ্রামে সহ পরিবারের বসবাস।বাবা আব্দুল হায়াতের বয়সের সাথে শাররীক অসুস্থতায় কার্যত সংসারের ভার ছিল নিজারুলের ঘারে।বর্তমানে প্যান্ডেল ডেকোরেটারে নিজারুল লেবারের কাজ করে চলছিলো।সংসারের চাপে ফুরসৎ নেই, রাজনীতি থেকে দূরে ছিল নিজারুল সহ পরিবার।তবে রক্ষা হলো না। ঘটনা প্রসঙ্গে বাবা আব্দুল হায়াৎ বলেন,”সোমবার সন্ধে থেকে জলাপাড়া গ্রামেই চলছিলো তৃণমূলের এক মিটিং।সেই মোটিংয়ে পঞ্চায়েতের প্রার্থী কে হবে তা নিয়ে গন্ডগোল চলছিলো।অনেক কর্মী ভোটে দাঁড়ানোর কথা বলাই দীর্ঘক্ষণ ধরে গন্ডগোল চলছিলো।সেইসময় প্যান্ডেলের কাজ করে রাস্তা দিয়ে হেটেই বাড়ি ফিরছিলো ছেলে।তৃণমূলের সেই গন্ডগোলের গুলি ছেলের মাথায় লাগে।তারপর স্থানীয়রা ছেলেকে উদ্ধার করে আমাদের খবর দেয় এবং মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।কলকাতা নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় ছেলের।আমরা কোনো রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নয় তবুও প্রাণ গেলো ছেলের।কি দোষ ছিলো আমার ছেলের ? দোষীদের শাস্তি চাই।আমার পরিবার ছারখার করে দিলো”। এদিকে রাতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছায় কালিয়াচক থানার পুলিশ।চলছে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের তল্লাসি।ঘটনা প্রসঙ্গে জেলা পুলিশ সুপার অর্ণব ঘোষ জানিয়েছেন,”গভীর রাতে গুলি করে এক যুবককে গুলি করা হয়।তারপর মৃত্যু হয় ওই যুবকের।তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে।তার মধ্যে সুকরাতুল আলম নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে কালিয়াচক থানার পুলিশ।এখনো পর্যন্ত জন রাজনৈতিক দিক পাওয়া যায়নি।প্রাথমিক তদন্তে যত টুকু বেরিয়েছে ঘটনাই যারা জড়িত রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে পুলিশের খাতায় আগ্নেয়াস্ত্র এর অভিযোগ রয়েছে।টার্গেট করেই এই খুন বলে জানান পুলিশ সুপার”।