লকডাউনে গৃহবন্দী সন্তান, সুস্থ রাখতে মেনে চলুন এই ৩টি উপায়

লকডাউনে গৃহবন্দী সন্তান, সুস্থ রাখতে মেনে চলুন এই ৩টি উপায়
আজ বাংলাঃ   করোনা মহামারীর কারণে এখন ছন্দে ফেরেনি দুনিয়া। বন্ধ স্কুল। বন্ধুদের সঙ্গেও দেখা হয়নি বহু দিন। কলোনির ছেলে মেয়েদের সঙ্গেও খেলা হয় না স্কুল থেকে ফিরে। বাড়িতে চেনা পরিচিতদেরও যাতায়াত বন্ধ। এমন অবস্থায় আমূল বদলে গিয়েছে আপনার সন্তানের রোজকার রুটিন। ঘর বন্দী হয়ে আমাদের জীবন যেমন বদলে গিয়েছে, তেমনই বদলেছে বাড়ির খুদেদেরও। আমরা আমাদের ভালো না লাগা বা বিরক্তি প্রকাশ করি নানা উপায়ে। তার সঙ্গে মোকাবিলা করার কৌশলও আমরা জানি। কিন্তু ওরা তো ছোটো, ওরা এসব জানে না অত। তাই আপনাকেই সাহায্য করতে হবে ওকে ভালো, সুস্থ রাখার জন্য। এই তিনটি উপায় মেনে চলুন আপাতত। তাতেই কিছুটা ফল মিলবে বলে আশা করা যায়। স্কুল বন্ধ থাকায় এখন অনেক জায়গাতেই অনলাইনে ক্লাস করানো হচ্ছে। ফলত দিনের অনেকটা সময় তার কাটছে ফোন বা মনিটরের স্ক্রিনের দিকে তাকিয়ে। চেষ্টা করুন এরপর যেন আর কোনও স্ক্রিনের দিকে চোখ না দেয় আপনার সন্তান। অনলাইন ক্লাস শেষ হলে টিভি, কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা ফোনের থেকে দুরেই রাখুন ওকে। রোজ ৭ ঘন্টা ঘুম বাধ্যতামূলক। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে শরীর, মন দু'য়ের উপরেই প্রভাব পড়বে। বাধা প্রাপ্ত হতে পারে শিশুর শারীরিক বিকাশ। জাঙ্ক ফুড বা প্যাকেটজাত খাবার থেকে সন্তানকে দূরে রাখুন। ২৪ ঘণ্টা বাড়িতে থাকার পর বাইরের খাবার না খাওয়াই উচিৎ।