অস্বাস্থ্যকর খাবার থেকে মন উঠাতে বদলে ফেলুন খাদ্যতালিকা

আজবাংলা  যত দিন যাচ্ছে, পূর্ণবয়স্ক তো বটেই, এমনকী শিশুদের মধ্যেও বাড়ছে ওবেসিটির আশঙ্কা৷ তার মূলে অতি অবশ্যই রয়েছে আমাদের খাদ্যাভ্যাস৷ নিউট্রিশনিস্টরা বলছেন, ‘‘মাত্র বছর কু়ড়ি আগেও আমাদের মা-মাসিরা বাড়িতেই সুস্বাদু মুখরোচক খাবার বানিয়ে দিতেন৷ বাইরে খাওয়াটা ছিল শখ বা বিলাসিতার ব্যাপার৷ এখন ছেলেমেয়েদের রোজের স্কুলের টিফিনেও আমরা নিশ্চিন্তে দোকান থেকে কেনা কেক-বিস্কিট-চিপস প্যাক করে দিই৷ পাশাপাসি নানা অজুহাতে, উপলক্ষে রেস্তোরাঁয় খাওয়া তো আছেই৷ তারই প্রভাব পড়ছে আমাদের সামগ্রিক স্বাস্থ্যে৷ মনে রাখবেন, স্বাস্থ্যকর খাবারও সুস্বাদু হয়৷ বানানোর সময় কেবল একটু বেশি যত্নশীল হতে হবে৷’’ রোজের খাদ্যতালিকায় চেনা কয়েকটি উপাদান বদলে ফেলার পরামর্শ দিচ্ছেন যাজ্ঞসেনী, তাতে স্বাদের দিক থেকে খুব একটা সমঝোতা করতে হবে না, কিন্তু স্বাস্থ্যের দিক থেকে লাভবান হবেন আপনি৷বিজ্ঞানীরা বলছেন, চারটি উপায় মেনে চললে আপনার মন স্বয়ংক্রিয়ভাবেই স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণে উৎসাহী হবে।ইয়েল ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক নিজেদের সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখেছেন, অতি সাধারণ কয়েকটা কৌশল গ্রহণের মাধ্যমে মানুষ তার অস্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণের প্রবণতাকে অনেকাংশেই কমিয়ে আনতে পারে। গবেষকরা মনে করছেন, কোন খাবার নিয়ে আমরা যেভাবে ভাবি, সেই ভাবনাটাই খাদ্যাভ্যাসের ইতিবাচক বদল ঘটাতে পারে এবং মেদ কমাতে সহায়ক হতে পারে। বিস্কিট/ কেক দোকান থেকে কেনা বিস্কিট বা কেকে ময়দা, চিনি, তেলের পাশাপাশি প্রিজ়ারভেটিভও থাকে৷ সে তুলনায় শুকনো খোলায় ভাজা চিঁড়ে, বাদাম আর ছোলাভাজা অনেক স্বাস্থ্যকর৷ তবে ভাজার সময় বেশি নুন ব্যবহার করবেন না, আর ছোলার অর্ধেক পরিমাণ বাদাম নেবেন৷ আর দোকানে যে সব ডায়েট চিঁড়ে বা চানাচুর কিনতে পাওয়া যায়, সেগুলি ট্রান্স ফ্যাটে ভরা৷ ভাজার সময় কী মানের তেল ব্যবহার হয়েছে, তারও ঠিকঠিকানা নেই৷ এগুলি থেকে শতহস্ত দূরে থাকুন৷ চিজ় বা মেয়োনিজ় দেওয়া স্যান্ডউইচ একটা মিহি ছাঁকনি বা মসলিনের কাপড়ে সারা রাত ঝুলিয়ে রাখুন বাড়িতে পাতা টক দই৷ জল ঝরে দইয়ের টক ভাব কমে যাবে৷ তার মধ্যে সামান্য চিনি, বিটনুন, ভাজামশলা ছড়িয়ে ফেটিয়ে নিলেই সুস্বাদু সস তৈরি করা সম্ভব৷ এবার এর সঙ্গে মিষ্টি ভুট্টার দান, সেদ্ধ চিকেন, ডিম, শসা, পেঁয়াজ, টোম্যাটো, ক্যাপসিকাম, গাজর ইত্যাদি দিয়ে বানিয়ে ফেলুন স্যালাড৷ এটা রুটির মধ্যে রোল করে খেতে দারুণ লাগবে! ব্রাউন ব্রেড টোস্টে স্যান্ডউইচও বানাতে পারেন৷ সসেজ বা সালামি ধনেপাতা/ পার্সলি/ পুদিনাপাতা, রসুন, কাঁচালঙ্কা, গোলমরিচ বেটে, লেবুর রস আর নুন দিয়ে ম্যারিনেট করে নিন চিকেন বা কাঁটাছাড়া মাছ৷ তার পর সেটা অল্প তেলে সেঁকে বা গ্রিল করে নিন৷ ঠিক সসেজ বা সালামির মতো খেতে হবে না, কিন্তু আপনি কেমিক্যাল প্রিজ়ারভেটিভের হাত থেকে বাঁচবেন৷ নরম পানীয় কোল্ড ড্রিঙ্কের চিনি, রং বা রাসায়নিক উপাদান কোনওটাই শরীরের জন্য ভালো নয়৷ তার চেয়ে বরং ঘোল, ডাবের জল, নুন-লেবুর শরবত বা ফলের রস অনেক স্বাস্থ্যকর৷ তবে প্যাকেটজাত ফলের রসের বদলে বাড়িতে তৈরি করে নিন আপনার পছন্দের ফল বা সবজির জ্যুস আর সেটা না ছেঁকে পান করুন৷