জেনে নিই দৈনন্দিন জীবনে পূজার্চ্চনার নিয়ম,পদ্ধতি এবং কিছু গুরুত্তপূর্ন প্রণাম মন্ত্র

Worship
পূজার্চ্চনা

দৈনন্দিন জীবনে পূজার্চ্চনার নিয়ম,পদ্ধতি এবং কিছু গুরুত্তপূর্ন প্রণাম মন্ত্র দেবতা পুজায় বর্জ্জনীয় পুষ্পাদিঃ→ পুরুষদেবতার রক্ত বর্ণ পুষ্প দ্বারা পুজা করা নিষেধ। সূর্য্য কে ধুতুরা এবং বিল্বপত্র,, গণেশকে তুলসীপত্র,,মহাদেব কে শ্বেতজবা দ্বারা পুজা করা নিষেধ।অর্কপুষ্প,,ধুতুরা,,বৃহতি,,শ্মশানজাত বৃক্ষের পুষ্প এবং শেফালিকা ভিন্ন অন্যান্য ভূপতিত পুষ্প দ্বারা দেবপূজা নিষিদ্ধ।উগ্র গন্ধ পুষ্প দ্বারা শিব পুজা নিষেধ।।
দেবতার নিষিদ্ধ দ্রব্যাদিঃ→
শিব ও সূর্য্য পুজার অর্ঘ্যে শঙ্খ নিষেদ্ধ। বিল্বপত্র তর্জনী ও অঙ্গুষ্ঠ দ্বারা গ্রহন করিয়া উপুড় করিয়া,,তুলসীপত্র অনামিকা- মধ্যমা ও অঙ্গুষ্ঠদ্বারা ধরিয়া চিৎ করিয়া এবং পুষ্প যেরূপভাবে বৃক্ষে উৎপন্ন হয় সেইরূপভাবে ধরিয়া দেবতাকে নিবেদন করিবেন। বিল্বপত্র অধোমুখ করিয়া দেবতাকে নিবেদন করিবেন। শ্রাদ্ধাদি কার্য্যে দুর্ব্বার গর্ভ অর্থাৎ কোক ফেলিয়া দিবেন। বাম হস্তে পুষ্পাদি লইয়া দেবতা পুজা নিষিদ্ধ।।


দেবতার নিষিদ্ধ বাদ্যঃ
দুর্গার নিকট বাঁশী,,শিবের নিকট করতাল,, ব্রহ্মার নিকট ঢক্কা এবং লক্ষীর নিকট ঘন্টা বাদ্য নিষিদ্ধ।।
মনসা পূজায় ধুনা দেবেন না। দেবতাকে উৎসর্গীকৃত পুষ্পদ্বারা সাজাইবেন না। পুজা শেষ হইবার পূর্ব্বে নৈবিদ্য ভাঙ্গিবেন না। নির্ম্মাল্য পুষ্প এবং আশির্ব্বাদী পুষ্প মস্তকে ধারণ করিবেন।।
পুষ্পের অভাবে ব্যবহার্য্য দ্রবাদিঃ→ পুষ্পের অভাবে পত্র,,পত্রের অভাবে ফল,,ফলের অভাবে কুশদ্বারা দেবতা পুজা করিবেন।কুশের অভাব হইলে গুল্ম এবং ওষধি দ্বারা আর তাহারও অভাব হইলে কেবল জলদ্বারাই পুজা করিবেন।যদি জলেরও অভাব হয় তবে কেবল মানষিক উপাচারে পূজা করিবেন।।
পর্য্যুষিত পুষ্পঃ→ তুলসী,,দুর্ব্বা,,পদ্মপুষ্প,,মালতীপূষ্প,, জাতীপুষ্প,,যুতিকা পুষ্প,,করবী এবং চম্পক পুষ্প কখনো পর্য্যুষিত(বাসি) হয় না। হাতের তালুতে দু-এক ফোঁটা জল নিয়ে ‘ওঁ বিষ্ণু’ মন্ত্রে পান করবেন। মোট তিন বার এইভাবে জল পান করতে হবে। তারপর করজোড়ে বলবেন— ওঁ তদ্বিষ্ণোঃ পরমং পদং সদা পশ্যন্তি সূরয়ঃ দিবীব চক্ষুরাততম্। ওঁ অপবিত্রঃ পবিত্রো বা সর্বাবস্থাং গতোঽপি বা। যঃ স্মরেৎ পুণ্ডরীকাক্ষং স বাহ্যাভ্যন্তরঃ শুচিঃ।। ‘ওঁ বিষ্ণু’‘ওঁ বিষ্ণু’‘ওঁ বিষ্ণু’ / মস্তকে তুলসী রেখে বলবেন : নমঃ তুলসী দর্শনে পুণ্য স্পর্শনে পাপ নাশন স্মরণে তির্থানি ভক্তিমে মুক্তি লক্ষণ নমঃ / গুরু প্রনামঃ ঔঁ অখণ্ডমণ্ডালাকারং ব্যাপ্তং যেন চরাচরম্। তৎপদং দশি‘তং যেন তস্মৈ শ্রীগুরুবে নমঃ।।১ অঞ্জানতিমিরান্ধস্য ঞ্জানাঞ্জন শলাকায়া। চক্ষু রুল্মীলিতং যেন তস্মৈ শ্রীগুরুবে নমঃ।।২. গুরু ব্রক্ষা গুরু বিষ্ণু গুরুদেবো মহেশ্বরঃ। গুরুঃ সাক্ষাৎ পরং ব্রক্ষ তস্মৈ শ্রীগুরুবে নমঃ।/ শ্রী কৃষ্ণ প্রনামঃ হে কৃষ্ণ করুণা সিন্ধু দীনবন্ধু জগৎপতে। গোপেশ গোপীকা কান্ত রাধা কান্ত নমহঃস্তুতে ।/
সরস্বতী পূজা মন্ত্রঃ
নারায়ণং নমোষ্কৃত্ত্যং নরাঞ্চৈবং নরোত্তমং দেবিং ।
সরস্বতী ব্যসং তত জয়েত্‍ মুদি রয়েত্‍ ।।
মূকং করোতি বাচালং পঙ্গুং লঙ্ঘয়তে গিরিম্ ।
যত্‍কৃপা তমহং বন্দে পরমানন্দমাধবম্ ।।
/ প্রণামঃ নমো সরস্বতী মহাভাগে বিদ্যে কমল লোচনে।
বিশ্বরূপে বিলালাহ্মী বিদ্রাং দেহি সরস্বতী।। / জয় জয় দেবী চরা চর মাঝে কুচ যুগ শোভিত মুক্তাহারে।
বীণারঞ্জিত পুস্তক হস্তে ভাগবতী ভারতী দেবী নমোহস্ততে।।
তুলসী গাছে জল দিবার মন্ত্রঃ
গোবিন্দ বল্লভাং দেবী ভক্ত চৈতন্য কারিনী।
স্নাপযামি জগদ্ধাত্রীং কৃষ্ণভক্তি প্রদায়িনী।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!