মুসলিম বৃদ্ধা মহিলার শেষকৃত্য করলেন পৈতাধারী ব্রাহ্মণ সহ হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষরা।

Hindu community, including Brahmin of Paayattahera
আজবাংলা
Hindu community, including Brahmin of Paayattahera
আজবাংলা

আজবাংলা মালদা : মানুষ যখন ক্রমে অসহিষ্ণু হয়ে উঠছে।মানুষ মানুষের রক্তারক্তি,রামনবমি ঘিরে যখন দেশ সহ রাজ্যে ফুটে উঠছে অসহিষ্ণুর চিত্র।তখনই ভিন্ন চিত্র মালদায়।সম্প্রীতির এক অনন্য নজির,মুসলিম বেওয়ার মৃত্যুতে রাম-রহিম মিলে একাকার। পৈতাধারী ব্রাহ্মণ সহ হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ মুসলিম বৃদ্ধা মহিলার শেষ যাত্রায় হলো সামিল। দিলেন মাটিও।সম্প্রীতির এই দৃশ্য পথ দেখাবে দেশ সহ রাজ্য বাসীকে,বলেই আশা প্রকাশ এলাকাবাসীর।

মালদা জেলার চাঁচল থানার মালতিপূর অঞ্চলের উত্তরপাড়া গ্রাম। গ্রামে মুসলিম ও হিন্দু উভয় সম্প্রদায়ের মানুষের বসবাস। মঙ্গলবার ভোর নাগাদ গ্রামের এক বৃদ্ধা মুসলিম মহিলার বার্ধক্য জনিত কারণে মৃত্যু হয়।মহিলার নাম আফরুন বেওয়া।বয়স হয়েছিলো প্রায় ৭৫।এক পুত্র ও দুই কন্যা রয়েছে মহিলার।ধার দেনা ভিক্কা চাঁদা তুলে মেয়েদের বিয়ে দিয়েছে আগেই।পরিবারের আর্থিক অনটনের কারণে ছেলে নুরুল ইসলাম ভিনরাজ্যের শ্রমিক।বর্তমানে ভিনরাজ্যে থাকায় মায়ের মৃত্যুর সংবাদ পেলেও ছেলের আশা সম্ভব নয়।তবে ছেলে হয়ে এগিয়ে মুসলিম ভাইদের ঘাড়ে ঘাড় মিললো গ্রামের হিন্দুরা ভায়েরা।হিন্দু মুসলিম মিলে মুসলিম সম্প্রদায়ের সমস্ত নিয়ম নীতি মেনে মৃত দেহ নিয়ে যান গ্রামের কবর স্থানে।হিন্দু সহ পৈতাধারী ব্রাহ্মণও দেহে মাটি দেন মঙ্গলবার দুপুর নাগাদ। রাম রহিমের গলায় সুর উঠলো ভাই-ভাইয়ের।গ্রামের ব্রাহ্মণ ব্যেক্তি শুভাশিস চক্রবর্তী জানান,”মায়ের ছেলে এখন নেই তাতে কি হয়েছে।আমরাই তো তার ছেলে।এই মা আমাদের ছেলের মতো ভালোবাসতো,আমরাও মায়ের মতো শ্রদ্ধা ভালোবাসা দিতাম। আমরা হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই।আমাদের গ্রামে হিন্দু ধর্মের কেউ মারা গেলে মুসলিম ভাইয়েরা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এগিয়ে থাকে। যেখানে যা হচ্ছে জানানেই তবে আমাদের গ্রামে সকলেই ভাই ভাই”। এপ্রসঙ্গে গ্রামের মুসলিম ধর্মের বাসিন্দা ভুজুয়া শেখ বলেন,”আমাদের ধর্মটাই শুধু আলাদা,কিন্তু রক্ত যেমন এক রং তেমনি আমরাও এক।আমরা এক সাথে বসবাস করি।একে অপরের প্রতি মায়ার বন্ধনে আবদ্ধ।আমি নিজেই গ্রামের অনেক হিন্দু পরিবারের সদস্যদের মৃত্যুতে অংশ নিয়েছি।আজকের ঘটনা এই গ্রামে নতুন কিছু নয়।আমাদের এই সম্প্রীতি দেশ তথা রাজ্যকে পথ দেখাবে বলে নিশ্চিত”। যখন রামনবমি সহ নানান ধর্মীয় অনুষ্ঠান ঘিরে রাজ্য সহ দেশ ক্রমশই অসহিষ্ণু হয়ে উঠছে,সেই পরিস্থিতিতে মালদার এই সম্প্রীতির চিত্র অবশ্যই পথ দেখাবে বিশ্বকে।