বারবার তপনের জলকষ্টের চিত্র সংবাদের শিরোনামে

hydrogenated images is in the news headlines
জলকষ্টের চিত্র সংবাদের শিরোনামে

আজবাংলা দক্ষিণ দিনাজপুরঃ গরম পড়তেই দক্ষিণ দিনাজপুরের তপন ব্লকের বিভিন্ন এলাকায় পানীয় জলের সমস্যা চরম আকার ধারণ করেছে। ভূগর্ভস্থ জল না পেয়ে স্থানীয়রা বাধ্য হয়েই ব্যবহার করছে পুকুরের জল। তপনের বিস্তীর্ণ এলাকার চিত্র এখন ঠিক এমনই। পানীয় জলের সমস্যা মেটাতে বছর দুয়েক আগে তপন এলাকায় প্রজেক্ট নেওয়া হয়। তবে তা এখন বিশবাঁও জলে। ফের একবার ভোট এসেছে। তপনবাসীর একটাই দাবি যাতে খুব তাড়াতাড়ি পানীয় জলের সমস্যা সমাধানের ব্যবস্থা করা হয়। তপন ব্লকের মালঞ্চা গ্রাম পঞ্চায়েতের বেশকিছু গ্রামেরই এখন একই ছবি। এই এলাকায় সব গ্রামগুলি মিলিয়ে ৫ হাজার লোকের বসবাস। এই গ্রামগুলো আদিবাসী সম্প্রদায়ভুক্ত। গ্রামগুলিতে পানীয় জলের সমস্যা দীর্ঘদিনের। প্রশাসনের তরফে একাধিকবার গ্রামের এই সমস্যা মেটানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শুরুর দিকে ইঁদারা বসিয়ে জলের চাহিদা পুরণের চেষ্টা করে স্থানীয় পঞ্চায়েত ও ব্লক প্রশাসন। কিন্তু তা ব্যবহারের অযোগ্য হয়ে যাওয়ায় মার্ক টু টিউবওয়েল বসানো হয়। সেগুলো দিয়েও লাল জল বের হতে থাকে, যা একেবারেই পানের অযোগ্য। কিছুদিন যেতেই সেই মার্ক টু টিউওবয়েলও অকেজো হয়ে পড়ল। ফলে পানীয় জলের সমস্যার কোন স্থায়ী সুরাহা আজ পর্যন্ত পায়নি গ্রামবাসী। ফলে গ্রীষ্ম পড়তেই ফের জল কষ্টে ভুগছে তপন ব্লকের একাংশ গ্রামবাসী। গোটা গ্রাম মিলিয়ে ভরসা একটি সরকারী মার্ক টু টিউবওয়েল। তবে সীমান্তরক্ষী বিএফএফ জওয়ানরা গাড়ি করে জল পৌঁছে দিয়ে কিছুটা হলেও এলাকার জল কষ্ট মেটাতে উদ্যোগী হয়েছে। বর্তমান সরকারের আমলে তপনের জল কষ্ট মেটাতে নতুন করে উদ্যোগ নেওয়া হয়। গত বছর বেশ কয়েকটি জায়গায় বসানো হয় পি-এইচ-ই। সেই মত গত বছরই পি-এইচ-ই’এর মাধ্যমে পাইপ লাইনের মাধ্যমে জল দেওয়া শুরু হয় গ্রামগুলিতে। তাও নিয়মিত নয়। দুদিন জল পাওয়া যায় তো তিনদিন জল পাওয়া যায় না বলে অভিযোগ গ্রামবাসীদের। মার্চ থেকে সেই সমস্যা আরও প্রবল হয়েছে। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, এই নিয়ে বারবার প্রতিশ্রুতি মিললেও জল সমস্যার স্থায়ী সমাধান এখনও হয়নি।
এবিষয়ে এক গ্রামবাসী বিনয় মন্ডল জানান, এলাকার বেশিরভাগ গ্রামেই জলের সমস্যা রয়েছে। মার্ক টু টিউবওয়েল, পি-এইচ-ই থাকলেও তা স্বাভাবিক নয়। তাদের দীর্ঘদিনের জল সমস্যা সমাধানে পঞ্চায়েত থেকে জেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন তারা। তবে লাভ কিছুই হয়নি বলে অভিযোগ উৎপলবাবুর। অন্যদিকে এবিষয়ে তপনের বিডিও সির্দ্ধাথ সুব্বা জানান, এই এলাকায় ভূগর্ভস্থ জল অনেক নীচে রয়েছে। ফলে জল সমস্যা থেকেই যাচ্ছে। জল সমস্যা মেটাতে প্রশাসন উদ্যোগ নিয়েছে অনেক আগেই। নানান এলাকায় পি-এইচ-ই, মার্ক টু টিউবওয়েলের মাধ্যমে জল দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।