অবৈধ ভাবে ভারতে থাকা বাংলাদেশি দের বাড়ি ফেরার ঢল সীমান্ত দিয়ে।

বাড়ি ফেরার অপেক্ষায়
বাড়ি ফেরার অপেক্ষায়

আজবাংলা ঢাকা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলোর সীমান্ত পয়েন্টগুলো দিয়ে বাড়ছে অবৈধ ভাবে ভারতে থাকা বাংলাদেশি দের বাড়ি ফেরার ঢল । প্রায় প্রতিদিনই সীমান্ত প্রহরীদের চোখ ফাঁকি দিয়ে শত শত মানুষ ঢুকে পড়ছে বাংলাদেশে। সব চেয়ে বেশি মানুষের প্রবেশের ঘটনা ঘটেছে ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে। ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে হঠাত্‍ বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছে কিছু নারী-পুরুষ-শিশু। ভারত থেকে আসা এই লোকগুলোকে ‘অবৈধ অনুপ্রবেশকারী’ সন্দেহে আটক করেছে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবি। এরপর তাদের তুলে দেয়া হয়েছে স্থানীয় পুলিশের হাতে।

বিজিবির কর্মকর্তার বলছেন, ভারতে এখন কথিত ‘অবৈধ অভিবাসনের’ বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে, তারপর থেকেই এ ধরণের লোকজন বাংলাদেশে পালিয়ে আসতে শুরু করেছে।বিজিবি এটিকে বাংলাদেশে ‘অবৈধ অনুপ্রবেশ’ হিসেবে দেখছে। এজেন্য এই অনুপ্রবেশ ঠেকাতে স্থানীয় প্রশাসন গ্রামে গ্রামে ইউপি সদস্যদের দিয়ে কমিটিও গঠন করছে।তবে স্থানীয় পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া যাচ্ছে একেবারে ভিন্ন ভাষ্য।পুলিশ আটকদের অনুপ্রবেশকারী বলতে রাজি নয়।পুলিশ বলছে, তদন্ত করে তারা দেখেছে আটক ব্যক্তিরা আসলে বাংলাদেশেরই মানুষ।ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অনুপ্রবেশের অভিযোগে আটকদের মধ্যে প্রায় ৮০ জন নারী এবং ২০টি শিশু রয়েছে বলে বিজিবি’র কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। আটক অনুপ্রবেশ কারিরা সবাই মুসলিম।বাংলাদেশের এক বিজিবি’র কর্মকর্তা জানান এনআরসির ভয়ে মানুষ ভারতেনদীয়া জেলা দিয়ে বাংলাদেশের ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর সীমান্তের কাছে এসে থাকছে এবং সেখান থেকে বাংলাদেশে ঢোকার চেষ্টা করছে।এরা মূলত ব্যাঙ্গালোর বা চেন্নাই এর মত জায়গা থেকে আসছে। সীমান্তের দুই পাশেই দালালচক্র বড় অংকের অর্থের বিনিময়ে তাদের সাহায্য করছে বলে তিনি উল্লেখ করেছেন। মহেশপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: রাশেদুল আলম বলছিলেন, আটকরা বাংলাদেশের নাগরিক বলে তদন্তে তারা প্রমাণ পেয়েছেন। সেকারণে এটাকে তারা অনুপ্রবেশ হিসেবে দেখছেন না।”আটকদের বেশিরভাগের বাড়ি বাগেরহাট জেলার মোড়েলগঞ্জ,শরণখোলা এলাকায়। এছাড়া কয়েকজন বাড়ি হচ্ছে পিরোজপুরের প্রত্যাশী ইউনিয়নে। ঐ এলাকাগুলো থেকে ব্যাঙ্গালুরু যায় কাজের জন্য। কিছু বেদেও এসে আটক হয়েছে। এরা সবাই ব্যাঙ্গালুরু থেকে এসেছে। তারা কোন এক সময় অবৈধভাবে ইন্ডিয়ায় গিয়েছিল।”তিনি আরও বলেছেন. “আমি এটাকে অনুপ্রবেশ বলবো না। যেহেতু তারা এদেশের নাগরিক। তারা নাম পরিচয় যা বলেছে, তদন্তে আমরা তার সত্যতা পেয়েছি।”

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!