বৃষ্টির আশায় ব্যাঙের বিয়ের দিল দক্ষিণ ২৪ পরগণার রায়দিঘীর কৌতলার বাসিন্দারা।

শান্তনু পুরকাইত , আজবাংলা দক্ষিন ২৪ পরগনা ব‍্যাঙের বিয়েতেই আসবে বৃষ্টি। সেই আসাই দক্ষিন সুন্দরবন ও সুন্দরবন লাগোয়া আমন চাষিরা। আকাশের মুখ চেয়ে আবালবৃদ্ধ বণিতারা। নামেই রাজ্যে ঢুকেছে বর্ষা। অথচ বৃষ্টির দেখা নেই দক্ষিণবঙ্গে। পরিসংখ্যান বলছে এখনও দক্ষিণবঙ্গে বৃষ্টির ঘাটতি ৫০ শতাংশ। বেজায় সমস্যায় কৃষকরা। এবার তাই বৃষ্টি ডাকতে ব্যাঙের বিয়ের আয়োজন করা হল দক্ষিণ ২৪ পরগণার রায়দিঘীর কৌতলার বাসিন্দারা। গ্রামবাসীদের বিশ্বাস, ব‍্যাঙের বিয়ে দিলেই নাকি বৃষ্টি হবে সব জায়গায়। তাই গ্রামের মানুষরা মিলে ব্যবস্থা করেছে ব্যাঙ-এর বিয়ের অনুষ্ঠান। তাই নিয়েই মেতে উঠল রায়দিঘীর কৌতলার প্রবীন নবীনরা। ওই এলাকার কৃষিকাজ মূলত বৃষ্টিপাতের ওপরই নির্ভর করে। কিন্তু এবার বৃষ্টিপাতের অভাবে চিন্তার ভাঁজ সকলের কপালে। তাই কৃষিতে বাধা দূর করতে রীতিমতো অনুষ্ঠান করে ২টি ব্যাঙের বিয়ের ব্যবস্থা করেন গ্রামবাসীরা৷ প্রায় ১০টি গ্রামের মানুষ হাজির হয় ওই বিয়ের অনুষ্ঠানে। ঢাক,বাজনা বাজিয়ে বয়ারগদীর পাত্র ব‍্যাঙ রাজের সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হয় কৌতলার পাত্রী ব‍্যাঙ শুভশ্রীর সঙ্গে । তা দেখতে প্রচুর মানুষ ভিড় করে ওই অনুষ্ঠানে। অনুষ্ঠানে আগত সমস্ত মানুষদের খাওয়া দাওয়ার আয়োজণ করে কৌতলা কার্তিক সংঘের ছেলেরা। ব্যাঙের বিয়েতে মেতেছেন প্রবীন নবীনের । পৌরানিক যুগের সেই বিশ্বাস আজও রয়েছে বাসিন্দাদের মনে। যদিও অনেকের দাবি প্রকৃতির এই অকাল দিন তার কার ন নিজেরা । প্রাকৃতিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলায় শ্রাবনের শূরুতেও মিলছেনা বৃষ্টি । তাই ব্যাঙের বিয়ের মতো বিশ্বাস থাকলেও। প্রকৃতির দিকে নজর দিতে হবে । রক্ষা করতে সবে গাছ বনজঙ্গল ।দক্ষিন সুন্দরবনের কৌতলার মানুষ সব ভুলে ব্যাঙের বিয়ের উপর নির্ভর হয়ে পরেছেন । তাদের বিশ্বাস বৃষ্টি হবে এভূবনে। সেই আসাই বুকপেতেছেন দক্ষিন সুন্দরবনের প্রত্তন্ত এলাকাবাসি।