শিলিগুড়িতে বিজেপির ভয়ে পরিবেশ বাঁচানোর মিছিল একসঙ্গে বাম-কংগ্রেস-তৃণমূল

আজবাংলা শিলিগুড়ি শহরে পরিবেশ বাঁচানোর ডাক দিয়ে মিছিল করেছে বাম-কংগ্রেস-তৃণমূল। মিছিলে হাঁটলেন শিলিগুড়ির মেয়র অশোক ভট্টাচার্য, তৃণমূলের মন্ত্রী গৌতম দেব ও কংগ্রেসের শঙ্কর মালাকার।দিন কয়েক আগেও শিলিগুড়ি বাসির কাছে এমন ছবি ছিল অকল্পনিয়।তৃণমূল-সিপিএম দুপক্ষই দাবি করেছে, এর সঙ্গে রাজনীতির কোনও যোগ নেই। রাজনীতির ঊর্ধ্বে উঠে পরিবেশ বাঁচাতে একজোট হয়েছেন নেতারা। কিন্তু প্রশ্ন উঠছে, রাজনীতির সঙ্গে যোগ না থাকলে মিছিলে বিজেপির কোনও নেতা নেই কেন? শিলিগুড়ি পুরসভার দখল নিয়ে দুজনের 'মধুর' সম্পর্ক তো সকলেরই জানা। সেই গৌতম দেব ও অশোক ভট্টাচার্য হাঁটলেন প্লাস্টিক বিরোধী মিছিলে। তাঁদের সঙ্গে ছিলেন কংগ্রেস নেতা শঙ্কর মালাকার। মিছিলের ফাঁকে গল্পও করেছেন তিন নেতা। বসেছেন একই বেঞ্চে কিন্তু কথাও নেই বিজেপি। লোকসভা ভোটে বিজেপির উত্থানের পর থেকে রাজ্য রাজনীতি দাঁড়িয়ে এক নতুন সন্ধিক্ষণের মুখে। ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচন। রাজ্যে 'সাম্প্রদায়িক শক্তি'কে ঠেকাতে বিধানসভায় একসঙ্গে মিলে কাজ করার পরামর্শ দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জল্পনা শুরু হয়, তাহলে কি জোটবার্তা দিলেন তৃণমূল নেত্রী? আলিমুদ্দিনে দাঁড়িয়ে পোড়খাওয়া সিপিএম নেতা বলেছেন, 'রাজনীতি সম্ভাবনার খেলা। এখানে কেউ অস্পৃশ্য নয়। মমতার হাত ধরার ব্যাপারে হ্যাঁ বা না কিছুই বলছি না। তবে মমতাকে এখনো অনেক কিছু করতে হবে। আমাদের শর্ত মানলে তবেই তাঁর সঙ্গে সহযোগিতা সম্ভব'। এমন একটা প্রেক্ষাপটে পরিবেশ বাঁচানোর উদ্দেশ্যে শিলিগুড়িতে গৌতম দেব ও অশোক ভট্টাচার্যদের মিছিলের বিধেয় নিয়ে শুরু হয়েছে জল্পনা। বাম-কংগ্রেস-তৃণমূল নেতাদের একসঙ্গে আসা তাই খুব একটা অপ্রত্যাশিত নয় বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। তাদের মতে, বিধানসভা ভোটের আগে দেখা যেতে পারে এমন আরও অরাজনৈতিক মিছিল।