ভয়ানক ঘটনা ক্ষুধার্ত স্ত্রীকে মানুষের মাংস রান্না করে দিল স্বামী !!

আজ বাংলা :  উত্তরপ্রদেশে বিজনড়ে এক দম্পতি বসবাস করতেন । তাদের দাম্পত্য জীবন খুব একটা খারাপ ছিল না । হাসিঠাট্টার মধ্যেই তাদের জীবনটা এরকমই একদিন স্বামী তার স্ত্রীকে বলেছিল যে মানুষের মাংস রান্না করে তাকে খাওয়াবে ছড়িয়ে দেয় । অথচ তারই হাসিঠাট্টার কথাটি যে কোনদিনও একটি চরম ভয়ানক সত্যে পরিণত হবে সেটি হয়তো বউটি কোনদিনও ভেবেও দেখেনি । লোকটি সত্যিকারের মানুষের মাংস রান্না করে স্ত্রীকে পরিবেশন করে পুলিশ তদন্তে জানা যায় ব্যক্তিটি পুরোপুরি মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেছে তাই এই ধরনের অদ্ভুত আচরণ করেছে তাকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ প্রশাসন। Human Meat সংবাদপত্রের মাধ্যমে জানা যায় যে যেই দিন এই ঘটনাটি ঘটে সেইদিন অভিযুক্ত ব্যক্তির স্ত্রী বাড়ির বাইরে গেছিল কিছুক্ষণের জন্য সবজি আনতে রান্না করবে বলে । তিনি যখন বাড়িতে আসেন তখন দেখে অভিযুক্ত ব্যক্তি অর্থাৎ তার স্বামী তার জন্য ভালোবেসে রান্না বান্না করছে তিনি অনেকটা অবাক হন আবার খুশিও হন তার স্বামী তার জন্য এত মন দিয়ে রান্না করছে বলে । স্বাভাবিকভাবেই রান্না শেষে তারা দুজন টেবিলে খেতে বসে আর খেতে বসার সময় তার স্বামী পরিবেশন করে মাংস কিন্তু যেই মুহুর্তে মাংস টি পাতের পড়ে দেখে মানুষের হাত এবং সেই হাতে আঙুল গুলো স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে অর্থাৎ তার স্বামী রান্নাকরছিল মানুষের মাংস অর্থাৎ মানুষের হাত । তার স্ত্রী আতঙ্কিত ভয়ভীত হয়ে তার স্বামীকে কোনরকমে ঘরে বন্ধ করে সবার আগে লোকাল থানায় খবর দেয় এবং সেখান থেকে পুলিশ প্রশাসন এসেই অভিযুক্ত ব্যক্তিকে থানায় নিয়ে যায় ।পুলিশ তদন্ত করতে থাকে সে কিভাবে এই ব্যক্তিটি কোন মানুষকে খুন করে তার মাংস রান্না করেছে অনেক তদন্তের পর এবং তার স্ত্রী এর থেকে জানা যায় যে ব্যক্তি কয়েকদিন যাবত মানসিক অবসাদে ভুগছেন আসলে তার কিছুদিন আগেই কারখানার কাজটি চলে যায় তারপর থেকে তিনি হঠাৎ হঠাৎ অসংলগ্ন আচরণ করতে থাকে যে আচরণগুলো মাঝে মাঝে সীমা পেরিয়ে যায় । এরকমই এক অসংলগ্ন আচরণ করে বসলেন তিনি পুলিশ নানা রকম ভাবে তদন্ত করে জানতে পারি যে ব্যক্তিটি বাড়ির কাছে একটি শ্মশান থেকে মৃতদেহের হাত কেটে নিয়ে আসে এবং সেটি মসলা দিয়ে রান্না করে স্ত্রীকে খেতে দেয় । ভাগ্য ভালো যে এরজন্য কোন মানুষকে প্রাণ দিতে হয়নি তিনি খুন করে মানুষের মাংস রান্না করেনি ।