ভারতের বিপক্ষে পাকিস্তান ও চিনের হয়ে কথা বলতে মাঠে নেমেছে ভারতীয় কমিউনিস্টরা।

প্রভাকর রায় আজবাংলা কাশ্মীর নিয়ে মোদী সরকারের সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় কলকাতার রাস্তায় বামেদের প্রতিবাদ মিছিল।বুধবার বিকালে কলকাতার রাস্তায় নামে ১৬টি বামপন্থী ও তাদের সহযোগী দল। বুধবার বিকাল ৪.৩০ মিনিটে লেনিন মূর্তির সামনে থেকে মিছিল শুরু হয়ে শেষ হয় শিয়ালদহে।মিছিলে জম্মু কাশ্মীরের রাজনৈতিক নেতাদের দ্রুত মুক্তির দাবিতে ওঠে আওয়াজ । দিল্লির যন্তর মন্তরে সিপিএমের সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি বলেছেন,সরকার ইসরাইলের ‘প্যালেস্টাইন’ ফর্মুলা নিয়েছে । কাশ্মীর কি ‘গাজা ভূখন্ড’ নাকি? প্রশ্ন ছুঁড়েছেন সীতারাম। ঠিক একি কথা বলছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। রাজনৈতিক মহলের মতে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের শেখানো কথা বলছেন সিপিএমের সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি। তবে এখানেই শেষ নয় প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ কারাত সোমবারই জানিয়েছিলেন মোদী সরকার ঠান্ডা মাথায় দেশের গণতন্ত্রকে খুন করেছে।দেশের ধর্ম নিরপেক্ষতার পক্ষে এই সরকার বিপদজ্জনক।রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে জম্মু ও কাশ্মীরে হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্পদায়ের মানুষ বসবাস করে। সেখানে ৩৭০ ধারা বাতিল হলে ধর্ম নিরপেক্ষতার পক্ষে বিপদজ্জনক হয় কি করে? তবে কি পাকিস্তান থেকে চিন হয়ে আসা সাহায্য বন্ধের ভয়ে এই কথা বলছেন কমিউনিস্টরা? কলকাতায় অবশ্য সেই বিক্ষোভের মূল স্লোগান ছিল, কাশ্মীরি সিপিএম নেতা ইউসুফ তারিগামীর মুক্তি চাই। বামেদের ডাকা মিছিলে শামিল ছিল ছাত্র যুবরাও। এসএফআই সারা ভারতেই ৩৭০ নিয়ে প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু করেছে।সিপিএমের সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি এদিন বলেন ৩৭০ এর সমর্থনে লড়াই দীর্ঘদিন চলবে। এই লড়াই শেষ হবার নয়। ঠিক একি কথা বলছে পাকিস্তান। জম্মু কাশ্মীরের জন্য ‘বিশেষ মর্যাদা’য় সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল ঘোষণার কয়েকঘণ্টার মধ্যেই সমস্ত পদক্ষেপ নেওয়ার’ হুঁশিয়ারি দেয় পাকিস্তান । জরুরি ভিত্তিতে সংসদের যৌথ অধিবেশন ডাকেন পাক রাষ্ট্রপতি আরিফ আলভি।পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলছেন কাশ্মীরের জন্য যতদূর যেতে হবে ততদূর যাবো। হিন্দু রা মুসলিম দের উপর অত্যচার করছে।এদিকে পাকিস্তানের সেনা নেতৃত্ব জানিয়েছে কাশ্মীরের জনগণের প্রতি দায়বদ্ধতা পূরণে পাক সেনাবাহিনী ‘যতদূর প্রয়োজন, ততদূর যেতে প্রস্তুত’। পাক সেনাপ্রধান বাজওয়া বলেছে, ‘পাক সেনাবাহিনী কঠোরভাবে কাশ্মীরিদের ন্যায্য সংগ্রামের সঙ্গে রয়েছে। এব্যাপারে আমাদের দায়বদ্ধতা পূরণে আমরা প্রস্তুত এবং যতদূর প্রয়োজন, ততদূর পর্যন্ত যেতে প্রস্তুত আমরা।’ ঠিক যেমন টি বলছেন সিপিএমের সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।আর বরাবরের মত এবার ভারত বিরোধিতায় কমিউনিস্ট চীন । তবে কি পাকিস্তান ও চিনের হয়ে এই কথা বলতেই, ভারত বিরোধিতায় নেমেছে ভারতের কমিউনিস্টরা? প্রশ্ন জন সাধারনের মনে --