হরিশ্চন্দ্রপুরে রিপোর্টারদের আক্রমণের লক্ষ্য কি তনুজ জৈন

তনুজ জৈন
তনুজ জৈন

আজবাংলা হরিশ্চন্দ্রপুর ৪ তারিখ এই অভিযোগটা হয়েছিল, তারপর থেকেই কিছু বেনামী পোর্টালে খবর লেখা হচ্ছে। হরিশ্চন্দ্রপুরে খবরের কি এতই আকাল ওইসব রিপোর্টারদের কাছে? তা না হলে একটা খবর নিয়ে এক সপ্তাহ ধরে খবর করা হচ্ছে কী উদ্দেশ্যে? এবার আসি অভিযোগের কথায়। আপনাদের সবাইকে অনুরোধ, অভিযোগটা একবার পড়ুন, এখানে শ্লীলতাহানির কি কোনো অভিযোগ আছে? ধরে নিলাম সুপারভাইজার শংকরী দাস কে কেউ পথ আটকে হুমকি দিয়েছিল, সেখানে কি তনুজ জৈন ছিল? ছিল না। সেদিন যে আমি কলকাতায় ছিলাম, তার ডকুমেন্ট প্রশাসনকে দিয়েছি। শংকরী দাস এর সন্দেহ যে এটা তনুজ জৈন করিয়েছে, কিন্তু এখানে খবর এই শিরোনামে লেখা হচ্ছে তনুজ জৈন শ্লীলতাহানি করেছে,তনুজ জৈন প্রাণনাসের হুমকি দিয়েছে। আমি চুপচাপই ছিলাম, কেননা হরিশ্চন্দ্রপুরের মানুষ আমাকে চেনেন, সুপারভাইজার শংকরী দাসকেও চেনেন, এবং এইসব যারা করছেন সেই মহামান্য রিপোর্টারদেরো চেনেন। শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষদের কাছে আমার তাই আবেদন যে সুপারভাইজারের কমপ্লেন এ সাত দিন ধরে খবর চলছে, আক্রমণের লক্ষ্য তনুজ জৈন। অভিযোগ যদি এত গুরুতর, তাহলে প্রথম সারির দৈনিকগুলো কেনো যে খবর করল না। আসলে আমিও সদ্য সাংবাদিকতায় এসেছি। ফলে আমাকে আক্রমণের পিছনে কি রসায়ন আছে আপনারাও একটু ভাববেন ও ভেবে দেখবেন।

এমন সমস্ত আপডেট পেতে লাইক দিন!