বিয়ের নিমন্ত্রণ করতে থানায় গিয়ে যুবকের হাজত বাস

হরিদেবপুর থানা
হরিদেবপুর থানা

আজবাংলা  দিন কয়েক আগে দক্ষিণ কলকাতার শহরতলির হরিদেবপুর থানায় ফোনে নিজেকে ‘শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়ক অমিত রায়’ বলে পরিচয় দিয়ে থানার ওসি-কে বলে, হরিদেবপুর থানা এলাকায় এক আইএএস অফিসার বিয়ে করছেন। বিয়েতে আমন্ত্রিত মন্ত্রী, আমলা-সহ ভিআইপিরা। পুলিশ যেন তাঁদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করে। শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়কের ফোন পেয়ে হরিদেবপুর থানার পুলিশের তত্‍পরতা বাড়ে। কয়েক দিন বাদে সেই আইএএস অফিসার শুভ্রজ্যোতি সরকার নিজেই হাজির হয় হরিদেবপুর থানায়। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, প্রথমে থানার সমস্ত পুলিশকর্মীকে রীতিমতো করজোড়ে বিয়ের অনুষ্ঠানে হাজির থাকার আমন্ত্রণ জানায় ওই যুবক। কথা কথায় জানা যায়, ২০১৬ সালে আইএএস অফিসার হয়েছে সে। কিন্তু তার কথাবার্তায় সন্দেহ হয় হরিদেবপুর থানার পুলিশ আধিকারিকদের। খোঁজ খবর নিতে শুরু করেন তাঁরা।   হরিদেবপুর থানার পুলিশের দাবি, খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়কের নাম অমিত রায় নয় এবং ২০১৬ ব্যাচের শুভ্রজ্যোতি সরকার নামে কোনও আইএএস অফিসারও নেই। শুভ্রজ্যোতি সরকার নামের ওই আইএএস অফিসারকে ডেকে পাঠায় হরিদেবপুর থানায় পুলিশ। ওই যুবকের সামনেই ফোন করা হয় ‘শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়ক অমিত রায়কে। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, দ্বিতীয়বার যখন শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়ককে ফোন করা হয়, তখন উদ্ধার হওয়া একটি মোবাইল বেজে ওঠে। প্রতারণার অভিযোগে ওই যুবককে গ্রেপ্তার করেছে হরিদেবপুর থানার পুলিশ। তদন্তকারীরা জানিয়েছেন, অন্য কেউ নয়, ওই যুবকই শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়ক পরিচয় দিয়ে পুলিশকে ফোন করেছিল, আবার আইএএস অফিসার সেজে থানায়ও এসেছিল। প্রথমে শিক্ষামন্ত্রীর আপ্ত সহায়ক পরিচয়ে ফোন, তারপর আইএএস অফিসার সেজে সটান হাজির থানায়! কিন্তু, শেষরক্ষা হল না। ধরা পড়ে গেল প্রতারক। তদন্তে নেমেছে হরিদেবপুর থানার পুলিশ।