চলন্ত বাসের জানলা থেকে হাত বের করে রাখায় হাত কেটে পড়ল কলকাতার রাস্তায়

আজবাংলা  বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ দেওয়ালে ধাক্কা লেগে কনুই থেকে থেঁতলে গিয়ে হাত কেটে রাস্তায় পড়ে গেল এক ব্যক্তির।বাকরুদ্ধকর ঘটনাটি ঘটেছে টালিগঞ্জের করুণাময়ী কালী মন্দিরের সন্নিকটে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওই যাত্রীকে এম আর বাঙুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ হরিদেবপুর থেকে এস-৪সি রুটের সরকারি বাসে ওঠেন উত্পল সরকার নামে একজন যাত্রী। হরিদেবপুর থেকে টালিগঞ্জ অভিমুখে যাওয়ার কথা ছিল তাঁর। বাসের বাঁ দিকে বসেছিলেন তিনি।অসাবধানবশত জানলার বাইরে হাত বের করে রাখায়,করুণাময়ী কালী মন্দিরের কাছে একটি বাড়ির দেওয়ালে ধাক্কা লেগে তাঁর বাঁ হাতের কনুইয়ের নীচের অংশটি কেটে রাস্তায় পড়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন , রাস্তার একেবারে গা ঘেঁষে থাকা নির্মীয়মান একটি বাড়ির দেওয়ালে ধাক্কা লেগে উত্পল নামে ওই যাত্রীর কনুইয়ের নীচের অংশটা কেটে যায়।রাস্তার পাশে একটি নর্মদা ছিল। কাট অংশ গিয়ে পড়ে নর্দমায় । সঙ্গে সঙ্গেই চিৎকার করে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন উৎপলবাবু। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে বাস থেকে নামিয়ে অটো করে এমআর বাঙ্গুর হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। সঙ্গে কাটা হাতটাকেও আনা হয়েছে। হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তাঁর। তবে এখনও পর্যন্ত চিকিৎসকেরা জানিয়েছেন, হাতের কাটা অংশ এতটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, এমনই থেঁতলে গিয়েছে যে তা জোড়া লাগার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। কোনও ভাবে জোড়া লাগানো যায় কি না, সে ব্যাপারে এসএসকেএম-এর চিকিৎসকদের থেকে পরামর্শ নেওয়া হচ্ছে।প্রসঙ্গত , চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসেই বাঘাযতীনে দু ' টি বাসের রেষারেষির জেরে হাত কাটা যায় একজন বৃদ্ধের।আবার ২০১৭ সালের জুলাই মাসে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বিষ্ণুপুরে বাসের জানলার বাইরে হাত রাখায় , মুহূর্তের মধ্যেই হাত কাটা যায় তিনজন যাত্রীর।২০১৩ সালেও মধ্য কলকাতায় হাত কাটা গিয়েছিল একজন বাস যাত্রীর | বারবার এই ধরনের ঘটনা সত্ত্বেও , সতর্ক হওয়ার কোনও লক্ষ্মণই নেই যাত্রীদের মধ্যে।পুলিশ বাসটিকে আটক করেছে।