আজ সারদা মায়ের ১৬৮-তম জন্মতিথি, ভক্তশূন্য বেলুড় মঠ থেকে বাগবাজারে মায়ের বাড়ি

আজ সারদা মায়ের ১৬৮-তম জন্মতিথি,  ভক্তশূন্য বেলুড় মঠ থেকে বাগবাজারে মায়ের বাড়ি

আজ সারদা মায়ের ১৬৮-তম জন্মতিথি। রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের সমস্ত কেন্দ্রেই এই দিনটি পালিত হয়েছে। আয়োজন করা হয়েছে নানা অনুষ্ঠানের। করোনা আবহে এবার ভক্তশূন্য কলকাতার বাগবাজারে মায়ের বাড়ি থেকে শুরু করে বেলুড় মঠ। তবে বিশেষভাবে পালিত হচ্ছে দিনটি। 

শ্রী সারদা দেবীর আবির্ভাব পৌষ মাসের কৃষ্ণা সপ্তমী তিথিতে। ১৮৫৩ সালের ২০ ডিসেম্বর জয়রামবাটিতে শ্যামাসুন্দরী দেবীর কোল আলো করে জন্ম নিয়েছিলেন তিনি। শ্রীরামকৃষ্ণের সহধর্মিনী তিনি। সারা জীবনের সাধনার ফল রামকৃষ্ণদেব অর্পণ করেছিলেন সারদা দেবীকে। বিবেকানন্দ তাঁকে দিয়েছিলেন সংঘ জননীর স্থান। 

আজ মায়ের জন্মতিথি উপলক্ষে ভোরে বেলুড় মঠে রামকৃষ্ণদেবের মূল মন্দিরে মঙ্গলারতি দিয়ে সূচনা হয়। এরপর সারাদিন ধরে নানা ধর্মীয় অনুষ্ঠান, বেদপাঠ, স্তবগান ভজন পরিবেশন করা হয়। সকালে বিশেষ পুজো হয়েছে। দুপুরে হোমের আয়োজন করা হয়েছিল |  বিকেলে ধর্মসভার আয়োজন করা হয়েছিল। বেলুড় মঠের ৩ জন মহারাজ ধর্মসভায়  মায়ের সম্মন্ধে আলোচনা করেন | 

 
প্রতি বছর মায়ের জন্মতিথি উপলক্ষে জয়রামবাটি থেকে শুরু করে বাগবাজারের বাড়ি, দক্ষিণেশ্বর, কথামৃত ভবন, শ্যামপুকুরবাটি, আদ্যাপীঠ, কাশীপুর উদ্যানবাটি, বলরাম মন্দির, কাশীশ্বর মিত্রের বাড়ি, আলমবাজার মঠ, বরানগর শ্রীশ্রীরামকৃষ্ণ আশ্রম-সহ বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে দিনভর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় | তবে এবছর বেশিভাগ ধর্মীয় স্থানে সাধারণ মানুষের প্রবেশ নিষিদ্ধ ছিল | 

প্রতি বছর বেলুড় মঠে এই দিনটি বিশেষ ভাবে আয়োজন করা হয় | বিভিন্ন স্কুল, কলেজ থেকে শোভাযাত্রা করে আসেন স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা। বেলুড়মঠের মূল মন্দিরের পাশে অস্থায়ী মণ্ডপে দিনভর গান, শ্রুতি নাটক, সারদা কথামৃত পাঠ-সহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শীতের শুরুতে ভক্তদের ভিড়ে জমজমাট মঠ চত্বর। তবে এবছর পুরো ছবিটাই আলাদা ছিল | করোনা প্রকোপের কথা মাথায় রেখেই বন্ধ ছিল বেলুড় মঠ |