মালদায় আই সি ডিএস সুপারভাইজার এর বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ স্থানীয়দের

আজবাংলা হরিশ্চন্দ্রপুর; মালদা আইসিডিএস সেন্টারের নিম্নমানের খাবার ও নিয়মিত সেন্টার না খোলায় আইসিডিএস সেন্টারের সুপারভাইজার এর বিরুদ্ধে ব্লক আধিকারিকের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করলে স্থানীয় বাসিন্দারা। এই অভিযোগ করার ফলে অভিযোগকারীর বাড়িতে গিয়ে অভিযোগ তুলে নেওয়ার হুমকি দেয় সুপারভাইজার বলে অভিযোগকারীর। বৃহস্পতিবার হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের কলম পাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে।অভিযোগ, দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের অধীনে থাকা ৬টি আইসিডিএস সেন্টার যার মধ্যে উত্তরপিপলা, মধ্যপাড়া, প্রান্তিক সংঘ, কাওয়ামারী ২, কাওয়ামারি ওরাওপাড়া ও গাঙ্গর১ এই কেন্দ্র গুলিতে অতি নিম্নমানের খাবার অভিযোগ তুলে এলাকার বাসিন্দা থেকে শুরু করে কেন্দ্রে র পড়ুয়ার অভিভাবকরা। অভিভাবকদের আরও অভিযোগ, তালিকা অনুযায়ী কেন্দ্র গুলিতে খাবার প্রদান করা হচ্ছে না। পোকা ধরা চাল, কোনও কোনও দিন সবজি ছড়ায় খাবার প্রদান করা হয়। গোটা ডিমের পরিবর্তে অর্ধেক ডিম দেওয়া হয়। সাত দিনে মাত্র তিন দিন সেন্টার গুলি খোলা হয় বাকি দিন গুলি বন্ধ। পঠন পাঠান মাথায় উঠেছে। এই নিয়ে সেন্টার ইনচার্জ দের অভিযোগ জানাতে গেলে উল্টো অভিভাবকদের শাসিয়ে তাড়িয়ে দেয় বলে অভিযোগ। এনিয়ে গত মঙ্গবার হরিশচন্দ্র পুর ১ ব্লকের আধিকারিকের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন কলম পাড়া এলাকার এক বাসিন্দা আসিস দাস। তিনি অভিযোগ করার পরেই এদিন তার বাড়িতে যান হরিশচন্দ্র পুর ১ ব্লকের সুপার ভাইজার শংকরি দাস আশীষ বাবুর অভিযোগ, ওই সুপার ভাইজার শংকরি দাস আমার বাড়িতে এসে আমাদের অভিযোগ পত্র তুলে নেওয়ার হুমকি দেন। পরে আমি সংবাদ মাধ্যমকে বিষয় টি জানায়।এবিষয়ে হরিশচন্দ্র পুর ১ পঞ্চায়েত সমিতির খাদ্য কর্মাদখ্যা কেরামুদ্দিন আহাম্মেদ জানান, দীর্ঘ দিন ধরে ওই সব সেন্টার গুলিতে আপুষ্টিকর খাওয়ার প্রদান করা হচ্ছে। বেশ কয়েক বার বিষয়টি আমি সুপার ভাইজার ও সেন্টার কর্মীদের জানিয়েছি কিন্তু তারা এর পরেও তালবাহানা করছে। এ বিষয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের সিডিপিও আধিকারিক কে বিষয়টি জানানো হয়েছে তারপরেও ওইসব সেন্টার গুলিতে ও পুষ্টিকর খাবার প্রদান করা হচ্ছে। এতে করে বোঝা যাচ্ছে যে সুপারভাইজার ওসিডি প্রিয় তারা মিলে জুলে সেন্টারগুলোতে সুপারভাইজার ও সি ডি পি ও ইচ্ছাকৃতভাবে অপুষ্টিকর খাবার প্রদান করছে এবং রাজ্য সরকারের দেওয়া গুণমান খাবারগুলি তারা অন্যত্র পাচার করছেন বলে অভিযোগ করেন। তিনি আরো বলেন বিষয়টি আমি হরিশ্চন্দ্রপুর ১ ব্লকের আধিকারিকের নজরে আনব।এ বিষয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর ১নম্বর ব্লকের আইসিডিএস সেন্টারের সুপারভাইজার শংকরী দাস জানান, আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হচ্ছে। রাজ্য সরকার থেকে যে খাবার পাঠানো হয় সেই খাওয়ারই শিশুদের কে প্রদান করা হয়। ওকে দিন আশীষ দাসের বাড়িতে আমি পরিদর্শনে গিয়েছিলাম যে অভিযোগ আমার বিরুদ্ধে নিয়ে আসছে তা পুরোটাই ভিত্তিহীন এবং মিথ্যা।হরিশ্চন্দ্রপুর ১ নম্বর ব্লকের ব্লক আধিকারিক অনির্বাণ বসু বলেন, এ ধরনের একটি অভিযোগ পেয়েছি সমস্ত অভিযোগ আমি আমার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানাবো প্রয়োজন পড়লে সেন্টারগুলোতে সরজমিনে তদন্ত করা হবে এরপরই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।