মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানসিক অবসাদে ভুগছেনঃ কৈলাস বিজয়বর্গী

কৈলাস বিজয়বর্গী
কৈলাস বিজয়বর্গী

বিশ্বজিৎ সরকার আজবাংলা দার্জিলিংঃ  রথ যাত্রার আনুষ্ঠানিক উদ্বোনে এসে কোচবিহারের উদ্দেশে রওনা দেবার আগে বাগডোগরা বিমানবন্দরে নেমে সাংবাদিক দের মুখোমুখি হয়ে কৈলাস বিজয়বর্গী জানান রথ যাত্রার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন সাত তারিখ। এবং বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মানসিক অবসাদে ভুগছেন। তার কারন যেভাবে ভারতীয় জনতা পার্টির লোকসংখ্যা বাড়ছে। এবং তৃণমূল কংগ্রেস বুঝতে পেরেছে যে এই রথ যাত্রার মাধ্যমে ভারতীয় জনতা পার্টি প্রতিটি জনগণের কাছে পৌঁছতে পারব। তাই আমাদের ভয় পেয়ে তৃণমূল কংগ্রেস মিথ্যা বদনাম ছড়াছে। এর পাশাপাশি তিনি আরও বলেন যে আমাদের এই রথ যাত্রা ভারতীয় জনতা পার্টিরর বিস্তার বাড়ানোর জন্য। এবং বর্তমান বাংলায় সরকার যেভাবে হিংসাত্মক রাজনৈতিক করছেন তার সম্পর্কে সাধারণ মানুষকে সচেতন করতেই আমাদের এই রথ যাত্রা। আমরা কোন ভাবে হিংসাত্মক রাজনৈতিক করি না। বলং মমতা ব্যানার্জী নিজেই এই ধরণের কথাবার্তায় সাধারণ মানুষছনকে আতঙ্কিত করেছেন। পাশাপাশি বুলন্দ শহরের প্রসঙ্গ সম্পূর্ণ এড়িয়ে গিয়ে তিনি জানান সরকার এ বিষয়ে তদন্ত করছে। তাই এভাবেই কাউকে দোষী সাব্যস্ত করা যায় না।অপরদিকে মুকুল রায় পবিত্র যাত্রা নিয়ে বলেন গণতন্ত্রের উপর পবিত্র বলে কিছু নেই। সেক্ষেত্রে মমতা ব্যানার্জী কোন পবিত্র যাত্রা করবেন তা জানা নেই। আর গনতন্ত্র আমাদের পশ্চিমবঙ্গে বিঘ্নিত। আর সেই গনতন্ত্রকে আর সঠিক রাখার জন্য ভারতীয় জনতা পার্টি রাস্তায় নেমেছে। এবং তৃণমূল কংগ্রেস এখন বুঝতে পেরেছে যে তাদের পায়ের তলা থেকে মাটি সরে যাচ্ছে। আর তৃণমূল কংগ্রেস দেখেছে যে পঞ্চায়েত নির্বাচনে এত অত্যাচার করে এত অশান্তি করে সেই অর্থে সেই রকম ভাবে ভাল ফল করতে পারেনি। তাই মমতা তার ক্ষমতা ক্ষমতাচ্যুত হবার ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে গেছে। এর পাশাপাশি তিনি আরও বলেন যে আগামী ১৬ তারিখ তৃতীয় রথ যাত্রায় স্বয়ং উপস্থিত থাকবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।