পুলিশ নিগ্রহ গ্রেফতার,রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুরের ছোট ছেলে শান্তনু ঠাকুর।

Manzulkrishna Thakur's younger son Shantanu was arrested
শান্তনু ঠাকুর
 Manzulkrishna Thakur's younger son Shantanu was arrested
শান্তনু ঠাকুর

আজবাংলা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী মঞ্জুলকৃষ্ণ ঠাকুরের ছোট ছেলে শান্তনু গ্রেফতার করলো পুলিশ । পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৯ মার্চ ঠাকুরবাড়িতে মতুয়া ধর্ম মহামেলা চলাকালীন হরিচাঁদ ঠাকুরের মন্দির থেকে একটি সোনার হার চুরি যায়। পরের দিন মেলার আহ্বায়ক ধ্যানেশ নারায়ণ গুহ থানায় অভিযোগ জানান। তদন্তে নেমে পুলিশ ঠাকুরবাড়ি থেকে অমিত মোহন্ত সরকার নামে এক যুবককে গ্রেফতার করে। ধৃতকে জেরা করে ও ঠাকুরবাড়ির সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে আরও দু’জনকে শনাক্ত করা হয়। শুক্রবার রাত ১০টা নাগাদ রামকৃষ্ণ গুড়িয়া নামে গাইঘাটা থানার এক সাব-ইনস্পেক্টর দুই যুবকের খোঁজে ঠাকুরবাড়িতে যান। তাঁদের আটক করে গাড়িতে তুলতে গিয়েই বিপত্তি হয়। অভিযোগ, সে সময়ই শান্তনু ও তপনকিরণ পুলিশকে বাধা দেন।  শান্তনু পুলিশকে ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেন। শান্তনু এবং কিছু লোকজনের সঙ্গে সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তি হয়। খবর পেয়ে ওসি অরিন্দম মুখোপাধ্যায় পুলিশ নিয়ে ঠাকুরবাড়ি পৌঁছন। অভিযোগ, তাঁকেও নিগ্রহ করা হয়েছে। আর এই ঘটনায় ফের সামনে এসে পড়ল ঠাকুরবাড়ির পারিবারিক কোন্দল। শান্তনুর দাবি, তাঁর বিরুদ্ধে চক্রান্ত করা হয়েছে। তাঁর কথায়, ‘‘আমি চক্রান্তের স্বীকার। পুলিশকে নিগ্রহ বা তাঁদের কাজে বাধা দেওয়া হয়নি। আমি শুধু পুলিশের কাছে জানতে চেয়েছিলাম, কেন দু’জনকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’’ গোটা ঘটনার জন্য শান্তনু এবং মঞ্জুলবাবু দায়ী করেছেন বনগাঁর সাংসদ তথা মতুয়া মহাসঙ্ঘের সঙ্ঘাধিপতি মমতা ঠাকুরকে। মঞ্জুলের বৌদি হলেন মমতা। মঞ্জুল বলেন, ‘‘বৌদি পুলিশ দিয়ে এ সব করাচ্ছেন। ঠাকুরবাড়িতে কার জন্য গোলমাল হচ্ছে, তা সবাই জানেন।’’ অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন বনগাঁর সাংসদ তথা মতুয়া মহাসঙ্ঘের সঙ্ঘাধিপতি মমতা ঠাকুর।