মামার বাড়ি থেকে বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হরিশ্চন্দ্রপুরের মুখবধির কিশোর।

আজবাংলা হরিশচন্দ্রপুর ; মামার বাড়ি থেকে বাড়ি ফেরার পথে ট্রেন থেকে নিখোঁজ এক মুখবধির কিশোর। পরিবারের লোকেরা বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করার পরও ওই কিশোরের কোন হদিস না পাওয়ার পরে মঙ্গলবার হরিশ্চন্দ্রপুর থানা আই একটি নিখোঁজ অভিযোগ দায়ের করেন পরিবারের সদস্যরা। ঘটনাটি ঘটেছে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার টেটিয়া গ্রামে।পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে জানা যায়, নিখোঁজ ওই কিশোরের নাম করণ মন্ডল (১৬) বাড়ি হরিশ্চন্দ্রপুর থানা মালিওর গ্রাম পঞ্চায়েতের টেটিয়া গ্রামে। গত ১৪ দিন ধরে সে নিখোঁজ। পরিবারের সদস্যরা আরো জানান, ১৪ দিন আগে ঝারখন্ড জেলার রাজমহল এলাকায়। সপ্তাহ খানেক মামার বাড়িতে থাকার পরে দিদা শুক্রি মণ্ডলকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। ওই সময় সামসি থেকে কাঞ্চনজঙ্ঘা ট্রেন এ করে হরিশচন্দ্রপুর এর উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। কিন্তু ট্রেনের কামরায় কোন এক যাত্রী জানান এই টেন হরিশ্চন্দ্রপুর স্টপিজে দাঁড়াবে না। এই কথা শোনার পর এই ট্রেন থেকে ঝাঁপ দেয় ওই কিশোরের দিদা। কিন্তু হরিশ্চন্দ্রপুর স্টপেজ বেরিয়ে যাওয়ার পরেও ট্রেন না দাঁড়ায় ওই কিশোর ট্রেন থেকে নাম আর আর কোন সুযোগ পাইনি। এই ঘটনার পরেই ওই দিনেই রেল পুলিশে খবর দিতে গেলে পুলিশ কোন গুরুত্ব দেয়নি বলে অভিযোগ পরিবারের সদস্যদের। পরিবারের সদস্যরাই বিভিন্ন স্টেশনে খোঁজাখুজি করার পরেও কিশোরের কোন হদিস না পাওয়ার পরে হরিশ্চন্দ্রপুর থানা একটি লিখিত নিখোঁজ অভিযোগ দায়ের করা হয়।এদিকে ছেলের দিন ধরে নিখোঁজ থ থাকাই ছেলের ছবি বুকে আগলে রেখে চোখের জলে ছেলে বাড়ি ফেরানোর আশায় দিন গুনছে মা জ্যোৎস্না মন্ডল।নিখোঁজ কিশোরের মা জ্যোৎস্না মণ্ডল জানান, মামার বাড়ি থেকে ট্রেনে করে বাড়ি ফেরার পথে হরিশ্চন্দ্রপুর স্টপিজে ট্রেন না দাড়ানোর ফলে সে ট্রেন অন্যত্র স্টেশনে চলে যায় যার ফলে ছেলেরা আর কোন হদিস পাওয়া যায়নি ছেলে মুখ ও বধির কথা বলতে পারে না আমরা বিভিন্ন স্টপেজ বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করার পরেও কোন খোঁজ না পেয়ে রেল পুলিশে অভিযোগ জানানোর পরেও রেল পুলিশ আমাদেরকে কোন সাহায্য করেনি বলে অভিযোগ। এ বিষয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানা একটি নিখোঁজ অভিযোগ করা হয়েছে। কিন্তু নিখোঁজের ১৪দিন পেরিয়ে গেল এখনো ছেলের কোন হদিস মেলেনি। প্রশাসনের কাছে একটাই অনুরোধ আমার ছেলেকে আমার কোলে ফিরিয়ে দেওয়া হোক।
এ বিষয়ে হরিশ্চন্দ্রপুর থানার আইসি সঞ্জয় কুমার দাস জানান, কিশোরের নিকট অভিযোগ পেয়েছি পুলিশ খোঁজ শুরু করেছে।