পঞ্চায়েতে কি পৃথক ভাবেই লড়াইয়ের ময়দানে মোর্চা? প্রশ্ন চিহ্ন বর্তমান রাখলেন বিনয়!

Morcha in the battlefield
বিনয় তামাং
Morcha in the battlefield
বিনয় তামাং

বিশ্বজিৎ সরকার,আজবাংলা দার্জিলিং: পঞ্চায়েত নির্বাচনের দিন ঘোষনা হয়েছে রাজ্য নির্বাচন কমিশনের তরফে। দিন ঘোষনা হবার পরেই ডান বাম সব রাজনৈতিক দলই প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করণের পথে হাটছে। যদিও এমতবস্থায় মোর্চার পদক্ষেপ কি হবে তা নিয়ে ধোয়াশা জিইয়ে রাখলেন মোর্চা নেতা তথা জিটিএ চেয়ারম্যান বিনয় তামাং। বিনয়ের কথায়, মোর্চার পদক্ষেপ কি হবে তা আগামীদিনে সেন্ট্রাল কমিটির বৈঠকের পরেই স্থির হবে। গোটা রাজ্য জুড়েই পঞ্চায়েত। তবে দার্জিলিং কালিংপঙে অবশ্য নির্বাচন নেই। সেক্ষেত্রে পাহাড়ে মোর্চার করনীয় কিছু নেই পঞ্চায়েত নিয়ে। যদিও তরাই ও ডুয়ার্সে নির্বাচন আছে। সেক্ষেত্রে ওই এলাকায় মোর্চা কি পৃথক পথে চলবে নাকি রাজ্যর সাথে গাটছড়া বেধে লড়াইয়ের ময়দানে নামবে সেই প্রশ্নের উত্তর অধরা রাখলেন বিনয় তামাং। রবিবার এক সাংবাদিক বৈঠকে বিনয় বলেন, তরাই ডুয়ার্সে পঞ্চায়েত নির্বাচন আছে। সে সমস্ত এলাকায় মোর্চা সক্রিয়। সেক্ষেত্রে ওই এলাকায় মোর্চা কোন পথে হাটবে তা এখনও দলগতভাবে সিদ্ধান্ত হয় নি। আগামী ৫ তারিখে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে সেই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলে জানান তিনি। অন্যদিকে, পাহাড়ের পঞ্চায়েত নির্বাচন ইস্যুতে বিনয় তামাং বলেন, পাহাড়ে পঞ্চায়েত নির্বাচন নেই বহু বছর ধরেই। সেই বিষয়ে একপ্রকার কেন্দ্রকেই দায়ী করেন তিনি। বিনয় বলেন, DGHC চুক্তিতে দ্বিস্তরীয় পঞ্চায়েতের কথা উল্লেখ আছে। ত্রিস্ত্ররী পঞ্চায়েত করতে হলে DGHC এর সংশোধন প্রয়োজন। এটা ২০১৭ সালে করা প্রয়োজন ছিল। তবে সে সময় পাহাড়ে অচলবস্থার জেরে সম্ভব হয় নি। যদিও রাজ্য বর্তমান সময়ে তা নিয়ে কেন্দ্রের সাথে কথা বলছে। কেন্দ্রের তরফে DGHC এর আইন সংশোধন হলে পাহাড়েও ত্রিস্তরীয় নির্বাচন হবে বলেই জানান তিনি। অন্যদিকে বিনয় তামাং বলেন, পাহাড়ের উন্নয়নে রাজ্যর তরফে একাধিক ভূমিকা নেওয়া হয়েছে। বরাদ্দ হয়েছে অর্থও। এছাড়াও তিনি বলেন, সিকিম ও দার্জিলিং এর যোগাযোগ অক্ষুন্ন রাখতে জাতীয় সড়কের পাশাপাশি চারটি পৃথক পথের কথা বলা হয়েছে সিকিমকে। সিকিমও আগ্রহ প্রকাশ করেছে বলে দাবী বিনয়ের। শুধু রাজ্য নয় পাহাড়ের উন্নয়নে কেন্দ্রও অর্থ বরাদ্দ করছে। সেক্ষেত্রে আগামীতে মোর্চা কোনদিকে যাবে? উত্তরে বিনয় তামাং বলেন, পাহাড়ের অসময়ে রাজ্য এগিয়ে এসেছিল। সর্বতভাবে সাহায্য করেছিল। যদিও ২০১৯ এর নির্বাচনকে সামনে রেখে দিল্লী কাজ করছে। সেক্ষেত্রে এই বিষয়টি গভীরভাবে নজরে রাখা হচ্ছে।