মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন মুহিউদ্দিন ইয়াসিন।কে এই মুহিউদ্দিন ইয়াসিন?

আজবাংলা     মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন মুহিউদ্দিন ইয়াসিন। মাহাথির মোহাম্মদ কিংবা আনোয়ার ইব্রাহিম নন। এমনকি অভিজ্ঞ রাজনীতিবিদ ও বর্তমান অর্থমন্ত্রী আলী আজমিনও নন। মালয়েশিয়ার পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষিত হয়েছে মুহিউদ্দিন ইয়াসিনের নাম।শনিবার ২২২ জন সাংসদের সঙ্গে কথা বলে মুহিউদ্দিন ইয়াসিন (Muhyiddin Yassin)র নাম পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করেন মালয়েশিয়ার রাজা সুলতান আবদুল্লা আহমেদ শাহ। এরপর আজ, রবিবার দেশের অষ্টম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন গত সরকারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব সামলানো ৭২ বছরের মুহিউদ্দিন ইয়াসিন। মাহাথির মোহাম্মদের সরে দাঁড়ানোর পাঁচ দিনের মাথায় মালয়েশিয়ার অষ্টম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা করেছেন দেশটির রাজা। কিন্তু কে এই মুহিউদ্দিন ইয়াসিন? ১৯৭৮ সালে দেশটির রাজনীতিতে পদার্পণ মুহিউদ্দিনের। সেবারই পাগোহ আসন থেকে সাংসদ নির্বাচিত হন।তাঁর বাবা একজন প্রভাবশালী ধর্মীয় শিক্ষক ছিলেন। ইউনিভার্সিটি অব মালয় থেকে ১৯৭০ সালে অর্থনীতি ও মালয় স্টাডিজে স্নাতক সম্পন্ন করেন মুহিউদ্দিন।মালয়েশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য জোহরের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে ৯ বছর দায়িত্বে ছিলেন মুহিউদ্দিন। ৪২ বছরের দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে ছয়টি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব সামলেছেন মুহিউদ্দিন। পররাষ্ট্র এবং বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রণালয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রণালয়ের সর্বোচ্চ পদেও ছিলেন ৭২ বছর বয়সী এই রাজনীতিক।এসবের চেয়ে বড় দায়িত্বও সামাল দিতে হয়েছে মুহিউদ্দিনকে। মাহাথির মোহাম্মদের নেতৃত্বাধীন রাজনৈতিক দল পাকাতান হারাপান ক্ষমতায় থাকার সময় মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তিনি। দেশটির ষষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের সময়ে ছয় বছর উপপ্রধানমন্ত্রী ছিলেন তিনি। কিন্তু ২০১৫ সালে মুহিউদ্দিনকে সেই পদ থেকে সরিয়ে দেন নাজিব। নাজিব রাজাকের আর্থিক কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে পড়ার বিষয়ে কথা বলায় তাঁকে বরখাস্ত করা হয়।রাজাকের দল থেকে বরখাস্ত হওয়ার পর মাহাথির ও তাঁর ছেলে মুখরিজের সঙ্গে হাত মেলান মুহিউদ্দিন। ২০১৬ সালে সবাই মিলে গঠন করেন রাজনৈতিক দল পার্টি প্রিবুমি বারসাতু মালয়েশিয়া (পিপিবিএম)। ২০১৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিল নবগঠিত এ দলটি।পিপিবিএম থেকে মাহাথির মোহাম্মদ সরে দাঁড়ানোর পর দলটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নেন মুহিউদ্দিন। এখন প্রধানমন্ত্রী হিসেবেও মাহাথিরের স্থলাভিষিক্ত হতে চলেছেন তিনি। এ ছাড়া পাকাতান হারাপানের উপপ্রধান হিসেবেও দায়িত্বে আছেন তিনি।প্রধানমন্ত্রীর পদ পেতে উমনো ও পিএসএ নামের দুই দলের সমর্থন নিতে হয়েছে মুহিউদ্দিনকে। তবে উমনোর সঙ্গে তাঁর এই সখ্যর সমালোচনা করেছেন মাহাথির মোহাম্মদ।কুয়ালালামপুরে অবস্থিত ইস্তানা নেগারা রাজপ্রাসাদে শপথ গ্রহণ করিয়ে তাঁর হাতে দায়িত্ব তুলে দেন সুলতান আবদুল্লা আহমেদ শাহ। হাজির ছিলেন মুহিউদ্দিন ইয়াসিনের স্ত্রী নুরানি আবদুর রহমান, মালয়েশিয়ার প্রধান বিচারপতি টেংকু মাইমুন তুয়ান মাত ও মুখ্যসচিব মহম্মদ জুকি আলি।এদিকে মুহিউদ্দিনের প্রধানমন্ত্রী পদে বসার কথা শুনে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মহাথির মহম্মদও। এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, এটা খুবই অদ্ভুত একটা ঘটনা। ২০১৮ সালের নির্বাচনে যারা হেরেছিল। তারাও আজ সরকার গঠন করতে চাইছে। তবে পদে বসলেও আস্থা ভোটে প্রয়োজনীয় সাংসদদের ভোট মুহিউদ্দিন জোগাড় করতে পারবেন না। কারণ ২২২ জনের মধ্যে ১১৪ জনই আমাকে সমর্থন করেছেন।’